× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ৭ ডিসেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার , ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

বন্যা: তাই রান্নার পাত্রেই বিয়ে সারলেন পাত্রপাত্রী

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) অক্টোবর ১৯, ২০২১, মঙ্গলবার, ১০:৫৬ পূর্বাহ্ন

চারদিকে বন্যা। ডুবে গেছে বাড়িঘর, বসতি। রাস্তার ওপর পানি। শুকনো কোনো স্থান নেই। এরই মধ্যে বিয়ের লগ্ন পেরিয়ে যাচ্ছিল ভারতের কেরালার আকাশ ও ঐশ্বরিয়ার। কিন্তু বিয়ের ক্ষণ তাদের কাছে বড় বেশি পবিত্র। সেই ক্ষণকে অতিক্রম করতে দিতে চান না। তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছিল অফিসের ছুটি। একবার তারা বিয়ের জন্য ছুটি নিয়েছেন। এই দফায় পিছিয়ে দিলে, আর ছুটি পাবেন না। তাই বিকল্প এক আয়োজন করলেন তারা। গ্রামের একটি ছোট্ট মন্দিরে গেলেন। তাও আংশিক প্লাবিত। আরেকটি মন্দির থেকে অ্যালুমিনিয়ামে তৈরি বিশাল একটি রান্নার পাত্র নিলেন। অগত্যা তাতেই চড়ে বসলেন বর-কনে। গেলেন নিজেদের গ্রাম থালাভাদির ছোট্ট মন্দিরে। অবশ্য বন্যার পানিতে ডুবে থাকা রাস্তার ওপর দিয়ে তাদেরকে ঠেলে ওই মন্দিরে নিয়ে গেলেন আত্মীয়রা। সেখানেই ওই অ্যালুমিনিয়াম পাত্রে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হলো। এ খবর আস্তে আস্তে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে তা ভাইরাল হয়ে যায়। আকাশ এবং ঐশ্বরিয়া দু’জনেই স্বাস্থ্যকর্মী।
উল্লেখ্য, ভারি বর্ষণে কেরালা রাজ্যে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। এ পর্যন্ত বন্যায় ও ভূমিধসে কমপক্ষে ৫৫ জন মারা গেছে বলে বিভিন্ন মাধ্যমে খবর পাওয়া যাচ্ছে। নদীগুলো বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ব্রিজ ও সড়ক পানিতে ভাসিয়ে নিয়েছে। বহু শহর ও গ্রাম বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এমন অবস্থায় নিজের বিয়ে সম্পর্কে স্থানীয় টিভি চ্যানেল এশিয়ানেট’কে ঐশ্বরিয়া বলেছেন, আমাদের বিয়ে এমন এক পরিস্থিতিতে হবে, তা কখনো কল্পনাও করিনি। তারা প্রথমে পরিকল্পনা করেছিলেন পারিবারিক সীমিত সংখ্যক সদস্যকে নিয়ে বিয়ে সম্পন্ন করবেন। কিন্তু বন্যার কারণে তা আর হয়ে ওঠেনি। তাই তারা এই বন্যার ভিতরেই জীবনের সবচেয়ে বড় সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন। সেই ছবি সবার সঙ্গে শেয়ার করেছেন।
অন্যদিকে আকাশ বলেছেন, কিছুদিন আগেই তারা বিয়ের দিন নির্ধারণ করেছিলেন। কিন্তু বন্যা এসে সব লন্ডভ- করে দিয়েছে। কিন্তু তারা বিয়ের দিন পিছাতে চাননি। কারণ, তারা জানেন না আবার কবে বিয়ের জন্য ছুটি নিতে পারবেন। তাই এই ছুটিতেই সেরে ফেলেছেন বিয়ে। তা করতে তাদের কাছে স্বল্প সময়ের জন্য একমাত্র অপশন ছিল ওই রান্নার পাত্র।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর