× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ১ ডিসেম্বর ২০২১, বুধবার , ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

পাকিস্তানকে মদিনার মতো কল্যাণকর রাষ্ট্র হিসেবে গড়তে চান ইমরান খান

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) অক্টোবর ২০, ২০২১, বুধবার, ১২:১৪ অপরাহ্ন

পাকিস্তানকে মদিনার মতো কল্যাণকর রাষ্ট্র বানাতে চান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেছেন, দেশে আইনের শাসনের প্রতিষ্ঠায় তার লড়াই অব্যাহত থাকবে। প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন জীবনের শেষ নিঃশ্বাস থাকা পর্যন্ত লড়াইয়ে অবিচল থাকবেন তিনি। শক্তিধর এবং দুর্নীতিপরায়ণ ব্যক্তিদেরকে জবাবদিহিতার আওতায় আনবেন। মঙ্গলবার রাজধানী ইসলামাবাদে রাহমাতুল্লিল আলামিন কনফারেন্সে বক্তব্য দেয়ার সময় এসব প্রতিশ্রুতি দেন ইমরান খান। তিনি বলেন, সমাজে মেধা এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করার জন্য পাকিস্তানকে মদিনার মতো কল্যাণকর রাষ্ট্রে পরিণত করতে চান। ইমরান খান বলেন, মদিনা রাষ্ট্রের ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে ন্যায়বিচার এবং মেধার ভিত্তিতে। মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-এর দেখানো নীতির উপর ভিত্তি করে আমরা একটি জাতি গঠন করতে পারি। এ সময় তিনি বিরোধী দলের দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, নওয়াজ শরীফ পরিবার ভুয়া ডকুমেন্ট উপস্থাপন করেছে এবং দেশের শীর্ষ আদালত কে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। এক্ষেত্রে তারা পানামা পেপারস মামলায় কাতারি চিঠি উপস্থাপন করেছে। ইমরান খান বলেন, যদি এই পানামা পেপারস মামলা বৃটিশ কোন আদালতে উত্থাপিত হতো তাহলে তারা অবিলম্বে নওয়াজ শরীফ পরিবারকে জেলে ঢুকিয়ে দিতো। পশ্চিমা দুনিয়ায় এবং পাকিস্তানের বিচার ব্যবস্থায় বিরাট পার্থক্য রয়েছে। তিনি আরো বলেন. যদি দেশের শক্তিধর ব্যক্তিদেরকে ন্যায়বিচারের আওতায় আনা না যায়, তাহলে কখনোই আইনের শাসন কার্যকর হবে না। দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পাকিস্তানের ৯০ লাখ মানুষ বিদেশে বসবাস করছেন। তাদের অর্থ-সম্পদ রয়েছে। কিন্তু তারা ব্যর্থ এবং দুর্নীতি পরায়ণ একটি ব্যবস্থার কারণে পাকিস্তানে বিনিয়োগ করতে পারছেন না। যদি এমন এক হাজার পাকিস্তানি দেশে বিনিয়োগ করতেন তাহলে আমরা আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিল আইএমএফ-এর কবল থেকে মুক্তি পেতাম। জাতিসংঘের ফ্যাক্টি প্যানেলের বিশেষজ্ঞদের উদ্ধৃত করে ইমরান খান বলেন, প্রতিবছর দুর্নীতির মাধ্যমে ১০০০ বিলিয়ন ডলার দরিদ্র দেশ থেকে উন্নত দেশগুলোতে পাচার হয় । তিনি জনগণকে নিশ্চয়তা দেন যে, খাদ্যসামগ্রীতে ভর্তুকি দেয়া হবে। গৃহায়ণে ঋণ দেয়া হবে। নাগরিকদের স্বাস্থ্য কার্ড দেয়া হবে। একই সঙ্গে তিনি দেশে যৌনতা বিষয়ক অপরাধ বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন। বলেন, বৃটেনে পারিবারিক ব্যবস্থাকে ধ্বংস করেছে অশ্লীলতা। তাই ভবিষ্যতে এই অশ্লীলতা থেকে আমাদের পরিবারকে, সন্তানদেরকে এবং সমাজকে রক্ষা করতে হবে। তিনি বলেন, রহমাতুল্লিল আলামিন অথরিটি গঠন করা হয়েছে যুবকদেরকে মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনী এবং শিক্ষা সম্পর্কে অবহিত করার জন্য। এর কর্তৃপক্ষ পরিচালিত হবে একজন অভিজ্ঞ বিশেষজ্ঞকে দিয়ে, যিনি ইসলামিক বিষয়ে সুশিক্ষিত এবং মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনী সম্পর্কে খুব ভালোভাবে অবহিত। ইমরান খান বলেন, সিরাতুন্নবী বিষয়ক কোর্স এরইমধ্যে স্কুলগুলোতে চালু হয়েছে। কর্তৃপক্ষ সেখানে কারিকুলাম নজরদারি করবে। এই কর্তৃপক্ষের ব্যক্তিবর্গ মিডিয়া এবং আন্তর্জাতিক সেল তদারকি করবে যাতে ইসলামভীতি বন্ধ হয় এবং বিশ্বের কাছে মুসলিমদের আবেগ এবং অনুভূতি সম্পর্কে প্রচার করা হয়। মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়া হয় হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর জীবনী ও শিক্ষা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর