× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ১ ডিসেম্বর ২০২১, বুধবার , ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি প্রথম রকেট উৎক্ষেপণ দ. কোরিয়ার, ব্যর্থ

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) অক্টোবর ২১, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৬:১২ অপরাহ্ন

দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি প্রথম রকেট উৎক্ষেপণ করেছে দক্ষিণ কোরিয়া। দীর্ঘ দিন ধরে মহাকাশে ঘাঁটি গাড়ার যে স্বপ্ন দেখে আসছে, তা পূরণে এক ধাপ এগিয়ে গেলো দেশটি। নুরি নামের ওই রকেটটি উৎক্ষেপণ করা হয় রাজধানী সিউল থেকে ৫০০ কিলোমিটার দক্ষিণে গোহেয়ুং নামক স্থান থেকে। এটি দিয়ে পৃথিবীর কক্ষপথে একটি ডামি স্যাটেলাইট স্থাপনের চেষ্টা করে দক্ষিণ কোরিয়া। তবে তাতে ব্যর্থ হয়েছে রকেটটি।  

বিবিসির খবরে জানানো হয়েছে, এ ধরণের রকেট মূলত মহাকাশ অভিযানে ব্যবহৃত হয়। তবে চাইলে একে সামরিক কাজেও ব্যবহার করা সম্ভব। প্রতিবেশী উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ৭০ বছর ধরে উত্তেজনা চলছে দক্ষিণ কোরিয়ার। উত্তর কোরিয়া ২০১২ সালেই নিজেদের স্যাটেলাইট স্থাপনে সক্ষম হয়েছে। সেখানে দক্ষিণ কোরিয়া এখনো এই প্রযুক্তি আয়ত্ব করতে পারেনি। ব্যর্থ হওয়া নুরি রকেটটি তৈরিতে দক্ষিণ কোরিয়ার ব্যয় হয়েছে ১.৬ বিলিয়ন ডলার। এর ওজন ২ হাজার টন এবং দৈর্ঘ্যে এটি ৪৭.২ মিটার। এর রয়েছে ৬টি ইঞ্জিন।

দক্ষিণ কোরিয়াকে যদিও প্রযুক্তির পাওয়ারহাউজ বলা হয় কিন্তু মহাকাশ প্রযুক্তিতে দেশটি পিছিয়ে আছে। ২০০৯ ও ২০১০ সালেও দেশটি মহাকাশে রকেট পাঠানোর চেষ্টা করেছিল। সেসব রকেটও উৎক্ষেপণের পর ধ্বংস হয়ে গেছে। ২০৩০ সালের মধ্যে চাঁদে রকেট পাঠাতে চায় দেশটি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর