× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৯ নভেম্বর ২০২১, সোমবার , ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

আফ্রিকার মালিতে ফ্যান রপ্তানি করছে ওয়ালটন

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার
২২ অক্টোবর ২০২১, শুক্রবার

 এবার পশ্চিম আফ্রিকার দেশ মালিতে ফ্যান রপ্তানি শুরু করলো সুপারব্র্যান্ড ওয়ালটন। এর ফলে বাংলাদেশে তৈরি ওয়ালটন ব্র্যান্ডের বিভিন্ন পণ্য পুরো আফ্রিকা মহাদেশে রপ্তানিতে মাইলফলক হিসেবে কাজ করবে। এর আগে উগান্ডা ও তানজানিয়াতে পণ্য রপ্তানি করেছে ওয়ালটন। উল্লেখ্য, চলতি বছর মার্চে মালির বিখ্যাত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সিম্পারা গ্রুপের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই করে ইলেকট্রনিক্স জায়ান্ট ওয়ালটন। সিম্পারা গ্রুপের মালি ও সেনেগালে বিস্তৃত ব্যবসায়িক নেটওয়ার্ক রয়েছে। চুক্তির আওতায় এই দুটি দেশে বাংলাদেশে তৈরি ওয়ালটনের ইলেকট্রনিক্স, ইলেকট্রিক্যাল এবং আইসিটি পণ্যসমূহ বিপণন করবে সিম্পারা গ্রুপ। মালি ও সেনেগালে ওয়ালটনের অথোরাইজড ডিস্ট্রিবিউটর হিসেবে কাজ করছে গ্রুপটি। মালিতে ৩০ মিলিয়ন ডলারের ইলেকট্রিক্যাল অ্যাপ্লায়েন্সের বাজার রয়েছে।
গত ১৯শে অক্টোবর ওয়ালটন অফিসে ‘ইনাগুরেশন সেরেমনি: এক্সপোর্টিং ওয়ালটন ফ্যান টু মালি’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। এসময় দেশটিতে ফ্যান রপ্তানি কার্যক্রম উদ্বোধন করেন ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর নজরুল ইসলাম সরকার, এমদাদুল হক সরকার ও ইভা রিজওয়ানা, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর এস এম জাহিদ হাসান, এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর আব্দুল্লাহ আল মামুন, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ইউনিটের (আইবিইউ) প্রেসিডেন্ট এডওয়ার্ড কিম এবং মালি মার্কেটের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত ওয়ালটন আইবিইউ শাখার কর্মকর্তা সাব্বির হাসান খান। সোহেল রানা বলেন, মালিতে ফ্যান রপ্তানির মাধ্যমে ইউরোপ, আমেরিকার পাশাপাশি আফ্রিকায় ব্যাপকভাবে ওয়ালটন পণ্য রপ্তানির সুযোগ তৈরি হলো। ফ্যান দিয়ে মালিতে রপ্তানি শুরু হয়েছে। ধাপে ধাপে দেশটিতে রেফ্রিজারেটর, এয়ার কন্ডিশনার, ইলেকট্রনিক অ্যাপ্লায়েন্সেস, ল্যাপটপ, টেলিভিশন, মোবাইল ফোন ও কম্প্রেসর ইত্যাদি পণ্য যাবে।
এডওয়ার্ড কিম বলেন, আফ্রিকায় অনেকগুলো উদীয়মান অর্থনীতির দেশের মধ্যে মালি অন্যতম। মালিকে সম্ভাবনাময় বাজার হিসেবে দেখছে ওয়ালটন। আমরা আত্মবিশ্বাসী মালিতেও একইরকমভাবে ওয়ালটনের সুনাম ছড়িয়ে পড়বে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর