× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ৫ ডিসেম্বর ২০২১, রবিবার , ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

রানে ফিরলেন মুশফিক

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার
২৫ অক্টোবর ২০২১, সোমবার

ব্যাটে রান ছিল না মুশফিকুর রহীমের। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে একেবারে নিজেকে খুঁজে পাচ্ছিলেন না দেশ সেরা এই ব্যাটার। ছোট্ট এই ফরম্যাটে প্রায় দুই বছর ধরে ফিফটি ছিল না তার। সেই ২০১৯ সালের ৩রা নভেম্বর দিল্লিতে ভারতের বিপক্ষে ৪৩ বলে ৮ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায় ৬০ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেছিলেন মুশফিক। এর পরপরই শুরু হয় মুশফিকের রানখরা। গতকাল ম্যাচের আগে খেলা ১১ ইনিংসে তার সংগ্রহ ছিল যথাক্রমে ৪, ০, ১৭, ১৬, ০, ২০, ০, ৩, ৩৮, ৬, ৫ রান। একদমই জ্বলে উঠতে ব্যর্থ মুশফিক তিনবার আউট হয়েছেন শূন্য রানে। আর চারবার ব্যর্থ হয়েছেন ডাবল ফিগারে যেতে। শুধু তাই নয়, একবার মাত্র বিশের ওপরে রান করতে পেরেছেন। সেটা এই বিশ্বকাপেরই প্রথম পর্বে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে। সেদিন ৩৮ করে উইকেট অরক্ষিত রেখে স্কুপ করতে গিয়ে হয়েছেন বোল্ড। একে তো হারের গ্লানি, তার মধ্যে আবার বোর্ড সভাপতির সমালোচনা। সবমিলিয়ে মুশফিক ওমানের বিপক্ষে ‘অন্ধকার মুখ’ নিয়েই মাঠে নেমেছিলেন। এমনকি নিজের ব্যাটিং পজিশন পিছিয়েও নিয়ে যান আট নম্বরে। ওই ম্যাচে অবশ্য ভালো করতে পারেননি। ৬ রান করে আউট হয়েছেন। এরপর পাপুয়া নিউ গিনির বিপক্ষেও ৫ রানের বেশি করতে পারেননি। তাই সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচে মুশফিকের ফর্মে ফেরাটা জরুরি ছিল। হয়েছেও তাই। লাহিরু কুমারার বলে লংঅনে সিঙ্গেল নিয়ে দুই বছরের খরা কাটিয়েছেন মুশফিক। ৩২ বলে পৌঁছান হাফসেঞ্চুরিতে। যা আবার বিশ্বকাপে মুশফিকের প্রথম হাফসেঞ্চুরি। এর আগের ২৩ ইনিংস খেলে কোনো হাফসেঞ্চুরি ছিল না তার। ৩৭ বলে মুশফিক অনবদ্য ৫৭ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন। ৫ চার ও ২ ছক্কায় নিজের ইনিংসটি সাজিয়েছেন। ১৫৪.৫ স্ট্রাইকরেটে মুশফিক বোর্ড প্রধানের কড়া সমালোচনার জবাব কি তাহলে ব্যাট হাতেই দিলেন?

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর