× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ৭ ডিসেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার , ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

মাদক মামলায় অভিযুক্ত স্যামসাংয়ের উত্তরাধিকারী, জরিমানা

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) অক্টোবর ২৬, ২০২১, মঙ্গলবার, ১:৫৩ অপরাহ্ন

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রযুক্তি বিষয়ক জায়ান্ট প্রতিষ্ঠান স্যামসাংয়ের উত্তরাধিকারী লি জায়ে-ইয়োংকে নেশা গ্রহণের দায়ে অভিযুক্ত করে জরিমানা করা হয়েছে। অভিযোগ আছে, তিনি বেআইনিভাবে চেতনানাশকারী প্রোপোফল ব্যবহার করেছেন। এই নেশাদ্রব্য সাধারণত মানুষকে অপারেশনের সময় অচেতন করতে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু লি জায়ে-ইয়োং কয়েক বছরে অনেকবার তা ব্যবহার করেছেন। দক্ষিণ কোরিয়ার আইনের অধীনে নিয়ন্ত্রিত কোনো মাদক যিনি গ্রহণ করবেন এবং যিনি তা প্রয়োগ করবেন- দু’জনকেই বিচারের আওতায় আসতে হয়। উল্লেখ্য, ঘুষ এবং অর্থ আত্মসাতের দায়ে অভিযুক্ত হয়ে জেল খেটেছেন লি জায়ে-ইয়োং। মাত্র আগস্টে তিনি প্যারোলে মুক্তি পেয়েছেন। এখন তার বিরুদ্ধে প্রোপোফল ব্যবহারের অভিযোগের বিচার শুরু হয়েছে। এতে প্রসিকিউটররা বলেছেন, ত্বকের চিকিৎসার নামে ২০১৫ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে বহুবার এই নেশাদ্রব্য ব্যবহার করেছেন লি। পক্ষান্তরে লি’র আইনজীবী দাবি করেছেন, তার পিতা হাসপাতালে ছিলেন এবং নিজের ঘুষ-অর্থ আত্মসাতের মামলা বিচারাধীন থাকায় প্রচ- মানসিক অস্থিরতায় ভুগছিলেন লি। তার সেই অস্থিরতা, হতাশা দূর করতে এই চিকিৎসা দেয়া হয়েছিল তাকে। অভিযোগের দায় স্বীকার করেছেন লি। এ ঘটনায় আজ মঙ্গলবার আদালত তাকে ৫৯ হাজার ডলার জরিমানা করেছে।
অপারেশনের সময়ে রোগীকে অচেতন করতে খুব বেশি ব্যবহার করা হয় প্রোপোফল। কিন্তু কখনো কখনো তা চিত্তাকর্ষণের জন্য বা মানসিক অবসাদ দূর করতে ব্যবহার করা হয়। ২০০৯ সালে এই প্রোপোফলের অতিমাত্রায় ব্যবহারের কারণে মারা যান পপ সঙ্গীতের কিংবদন্তি মাইকেল জ্যাকসন। এর আগে দক্ষিণ কোরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট পার্ক গিউন-হাই’কে ঘুষ দেয়ায় ভূমিকা থাকার জন্য জানুয়ারিতে লি জায়ে-ইয়োং’কে আড়াই বছরের জেল দেয়া হয়। সাম্প্রতিক সময়ে এটাই দক্ষিণ কোরিয়ায় সবচেয়ে বড় আর্থিক দুর্নীতির মধ্যে অন্যতম। আড়াই বছরের জেল দেয়া হলেও এ বছর আগস্টের শুরুতে মুক্তি পান লি জায়ে-ইয়োং। প্রেসিডেন্টের অফিস থেকে আশা করা হয়, তার নেতৃত্বে স্যামসাং দেশকে অর্ধপরিবাহী ও টিকা উৎপাদনে সাহায্য করবে। এর পরপরই স্যামসাং আগামী তিন বছরের জন্য প্রযুক্তিবিষয়ক চিপ এবং বায়োফার্মাসিউটিক্যাল খাতে ২০ কোটি ৬০ লাখ ডলার বিনিয়োগের প্রত্যয় ঘোষণা করে। অন্য মামলা থাকার কারণে নিজেকে সবার সামনে উপস্থিত করতেন না লি জায়ে-ইয়োং। শেয়ারবাজারের দর নিয়ন্ত্রণ করার অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে। ২০১৫ সালে প্রায় ৮০০ কোটি ডলারে স্যামসাংয়ের দুটি প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠায় জালিয়াতির সঙ্গে তার নাম জড়িয়ে আছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর