× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ৭ ডিসেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার , ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

উস্কানি দেয়ার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান সুচির

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) অক্টোবর ২৭, ২০২১, বুধবার, ২:৩০ অপরাহ্ন

ক্ষমতা থেকে উৎখাত ও গ্রেপ্তার করার পর প্রথমবারের মতো আদালতে নিজের বক্তব্য উপস্থাপন করেছেন মিয়ানমারের বেসামরিক নেত্রী অং সান সুচি। তার বিরুদ্ধে সামরিক জান্তা সহিংসতায় উস্কানির যে অভিযোগ এনেছে, তা প্রত্যাখ্যান করেছেন সুচি। মঙ্গলবার তিনি আদালতে প্রথম নিজের বক্তব্য তুলে ধরেন। ফেব্রুয়ারিতে তার দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) দুটি বিবৃতি প্রকাশ করে। এতে সামরিক শাসকগোষ্ঠীর নিন্দা জানানো হয় এবং সামরিক জান্তার সঙ্গে আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলোকে কাজ না করার আহ্বান জানানো হয়। এর মাধ্যমে সুচি উস্কানি দিয়েছেন বলে অভিযোগ আনে জান্তা সরকার। সেই অভিযোগ তিনি শুনানিতে প্রত্যাখ্যান করেছেন। এ খবর দিয়েছে অনলাইন আল জাজিরা।
৭৬ বয়সী এই নেত্রীর বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ এনেছে মিয়ানমারের সামরিক জান্তা। এসব অভিযোগে যদি তিনি অভিযুক্ত প্রমাণিত হন, তাহলে যাবজ্জীবন কারাদ- পর্যন্ত দেয়া হতে পারে তাকে। মিডিয়ার কাছে তার আইনজীবী দলের একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, মঙ্গলবারের শুনানিতে নিজে নির্দোষ এটা অত্যন্ত সফলভাবে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন অং সান সুচি। ওই আইনজীবী বিস্তারিত জানাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। কারণ, শুনানি নিয়ে মিডিয়ার কাছে তথ্য দেয়া থেকে তাদেরকে বিরত রেখেছে সামরিক জান্তা।
এ বছর ১লা ফেব্রুয়ারি বেসামরিক নেত্রী অং সান সুচি, তার প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টসহ পার্লামেন্টের অনেক সদস্যকে গ্রেপ্তার করে জেনারেলরা। এর আগে গত বছর নভেম্বরে মিয়ানমারে নতুন পার্লামেন্ট নির্বাচন হয়। তাতে ভূমিধস জয় পায় সুচির দল এনএলডি। ওই পার্লামেন্টের অধিবেশন শুরুর কয়েক ঘন্টা আগেই ১লা ফেব্রুয়ারি সুচিকে গ্রেপ্তার করে সামরিক জান্তা। এ ঘটনায় মিয়ানমারজুড়ে গণবিক্ষোভ, গণঅসহযোগ আন্দোলন শুরু হয়। সেনারা শক্তি প্রয়োগ করে এর জবাব দেয়। এতে শিশুসহ কমপক্ষে এক হাজার মানুষ মারা যায়।
ওদিকে অং সান সুচির বিরুদ্ধে ১০টিরও বেশি অভিযোগ আনা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে অবৈধভাবে ওয়াকিটকি রাখা। করোনা ভাইরাস বিষয়ক আইন ভঙ্গ। অফিসিয়াল সিক্রেট অ্যাক্ট লঙ্ঘন। উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে রিপোর্ট প্রকাশ থেকে বিরত থাকে মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় মিডিয়া। অন্যদিকে সুচির মামলায় তার আইনজীবী খিন মুয়াং জাওয়াকে সেনাবাহিনী বাইরে তথ্য দিতে বারণ করেছে। তিনি মিডিয়ার কাছে তথ্য জানিয়েছিলেন যে, মিয়ানমারের ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন। তাতে তিনি বলেছেন, অভ্যুত্থানের কয়েক ঘন্টা আগে তাকে ক্ষমতা ছাড়তে শক্তি প্রয়োগ করছিল সেনাবাহিনী। তিনি যদি এই প্রস্তাবে রাজি না হন, তাহলে তার ভয়াবহ ক্ষতি হতে পারে বলে সতর্কতা দিয়েছিল তারা। খিন মুয়াং জাওয়া এ বিষয়টি রিপোর্ট করার পর তার বিরুদ্ধে ওই নির্দেশ দিয়েছে জান্তা সরকার। উল্লেখ্য, অং সান সুচিকে এখনও অজ্ঞাত স্থানে আটকে রাখা হয়েছে। তবে বিশেষভাবে রাজধানী ন্যাপিডতে গঠিত আদালতে মঙ্গলবারের শুনানিতে তাকে হাজির করা হয়েছিল।
ওদিকে মঙ্গলবার শুরু হয়েছে তিন দিনের আসিয়ান সম্মেলন। ভার্চ্যুয়াল মাধ্যমে বার্ষিক এই সম্মেলন শুরু হলেও প্রথমবারের মতো রীতি ভেঙে এতে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি মিয়ানমারের সামরিক জান্তা, সেনাপ্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইংকে। একে তার জন্য সবচেয়ে অপমানজনক বলে বিবেচনা করা হচ্ছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর