× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২ ডিসেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার , ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

কেরানীগঞ্জে টিকটক ও শর্টফিল্ম মডেল বানানো চক্রের মূলহোতা নূরিতা গ্রেপ্তার

বাংলারজমিন

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি
২৮ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার

টিকটক ও শর্টফিল্ম-এর মডেল বানানোর নামে তরুণীদের ডেকে এনে নির্যাতন করে মুক্তিপণ আদায় করা চক্রের মূলহোতাকে গ্রেপ্তার করেছে কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। নূরিতা ওরফে সুরাইয়া (২৩) বগুড়া জেলার ধুনট থানার রাঙ্গামাটি গ্রামের আলমগীর ফকিরের মেয়ে। তবে অপর সদস্য চকরিয়ার মারুফ পলাতক রয়েছে। গতকাল সকাল ১১টায় দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় সহকারী পুলিশ সুপার কেরানীগঞ্জ সার্কেল শাহাবুদ্দিন কবির এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। শাহাবুদ্দিন কবির জানান, ভিকটিম সোনিয়াকে আসামি নূরিতা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শর্টফিল্মে অভিনয় করার কথা বলে ডেকে এনে কেরানীগঞ্জের মোকামপাড়া নূরিতার ভাড়া বাসায় নান্নু মিয়ার বাড়িতে একটি ঘরের মধ্যে বন্ধ করে তার সহযোগী মারুফসহ কয়েকজনকে নিয়ে নির্যাতন করে। তাকে হাত-পা বেঁধে মারধর করে মুক্তিপণ দাবি করে। সোনিয়া পরবর্তীতে মারধর সহ্য করতে না পেরে আত্মীয়-স্বজনের কাছে ফোন করে মুক্তিপণের জন্য ৮০০০ টাকা বিকাশের মাধ্যমে এনে নিজের মোবাইল ফোন এবং ব্যবহৃত স্বর্ণালংকার তাদের হাতে তুলে দিলে তারা ভিকটিম সোনিয়াকে চোখে কালো চশমা পরিয়ে রাতের অন্ধকারে বসুন্ধরা রিভারভিউ এলাকায় ঝোপের মধ্যে ফেলে যায়। সেখান থেকে বাসায় ফিরে পরদিন সকালে  ভিকটিম থানায় এসে অভিযোগ করলে তার অভিযোগ আমলে নিয়ে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) খালেদুর রহমান তদন্ত শুরু করে। এরই একপর্যায়ে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানাধীন হাসনাবাদ মোকামপাড়া নান্নু মিয়ার বাড়ির দ্বিতীয়তলায় অভিযান পরিচালনা করে এই চক্রের মূলহোতা নূরিতাকে গ্রেপ্তার করে। এ সময় পুলিশের অভিযান টের পেয়ে তার সহযোগী মারুফ কৌশলে পালিয়ে যায়। মারুফ ও তার কয়েকজন সহযোগীকে গ্রেপ্তারে পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর