× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২০ জানুয়ারি ২০২২, বৃহস্পতিবার , ৬ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

বগুড়ায় আনসার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের

বাংলারজমিন

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি
২৭ নভেম্বর ২০২১, শনিবার

শেরপুরে আনসার সদস্য পদে চাকরি দেয়ার নামে ২ লাখ টাকা ঘুষ নেয়ার অভিযোগে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। শেরপুর ঘোড়দৌড় গ্রামের মো. শফিকুর রহমান বগুড়ার আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। গত ৭ই ফেব্রুয়ারি বিকালে জেলা আনসার অফিসার অ্যাডজুটেন্ড শেখ ফিরোজ আহম্মেদ এবং শেরপুর উপজেলা আনসার কর্মকর্তা সোহাগ আলম শফিকুর রহমানকে তার নিজ বাড়িতে ডেকে নেন। এরপর তার পুত্র সোহেল রানাকে চাকরির জন্য ৫ লাখ টাকা ঘুষ দেয়ার চুক্তি করে। সেখানে শফিকুর নগদে ২ লাখ টাকা দেন। আগামী ৩ মাসের মধ্যে চাকরি দিলে অবশিষ্ট ৩ লাখ টাকা প্রদানের জন্য ৫ জন সাক্ষীর সামনে চুক্তি করা হয়। এদিকে চাকরি না হওয়ায় শফিকুর রহমান তার টাকা ফেরত চাইলে আসামীরা টাকা না দিয়ে নানা রকম ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদান করে। এরপর বাদী শফিকুর রহমান উপায় না পেয়ে গত ৮ই নভেন্বর বগুড়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালত-০৪ মামলা নং- ৪৬৩/২১ মামলা দায়ের করেন।
আদালত মামলাটি শেরপুর থানা পুলিশের কাছে তদন্তের জন্য প্রেরণ করেন। বাদী শফিকুর জানান, মামলা দায়েরের পূর্বে আসামিদের নামে গত ১৪ই অক্টোন্বর ডাক যোগে লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করেছি। আসামীরা নোটিশের জবাব দেন নাই। শেরপুর উপজেলা আনসার অফিসার সোহাগ আলম শেরপুরের আনসার সদস্য বেলাল হোসেন এবং নজরুল ইসলামের মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে ঘুষের টাকা লেনদেন করেন। এ ছাড়াও দলগতভাবে আনসার নিয়োগ না দিয়ে টাকা উত্তোলন করার অভিযোগ আছে। তিনি আনসারদের ভাতার অংশে কমিশনও নেন। গত দুর্গাপূজার সময়ে টহল গাড়ির দুর্ঘটনার জরিমানা থেকে ৫ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেন। তিনি বিসিএস ক্যাডারের সদস্য বলে হুমকি দিয়ে বলেন, আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়ে লাভ হবে না। মামলার বিষয় ও এধরনের অভিযোগ নিয়ে জেলা অ্যাডজুটেন্ড শেখ ফিরোজ আহম্মেদের সঙ্গে যোগোযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। শেরপুর উপজেলা কর্মকর্তা সোহাগ আলম জানান, আদালতে দায়ের করা মামলা মিথ্যা। শফিকুরের অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই। তবে মামলাটি আপষের চেষ্টা চলছে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর