× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৫ জানুয়ারি ২০২২, মঙ্গলবার , ১১ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

গৌরনদীতে আওয়ামী লীগ কর্মীদের হামলায় বিএনপি’র মিলাদ মাহফিল পণ্ড, আহত ৬

বাংলারজমিন

গৌরনদী (বরিশাল) প্রতিনিধি
২৮ নভেম্বর ২০২১, রবিবার

বরিশালের গৌরনদীতে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের হামলায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় আয়োজন করা মিলাদ ও দোয়ার অনুষ্ঠান পণ্ড হয়ে গেছে। ঘটনার সময় থেকে গতকাল শনিবার বিকেল পর্যন্ত দুই দিনে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের অতর্কিত হামলায় বিএনপি যুবদল ও ছাত্র দলের ৬ নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের ২ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়া হয়েছে, ১জনকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
গৌরনদী পৌর বিএনপি’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বিগত পৌর নির্বাচনে বিএনপি’র মনোনীত মেয়র প্রার্থী শরীফ জহির সাজ্জাদ হান্নান জানান, বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় কেন্দ্র ঘোষিত মিলাদ মাহফিল ও দোয়া-মোনাজাত কর্মসূচির অংশ হিসেবে শুক্রবার বাদআসর গৌরনদী উপজেলা ও পৌর বিএনপি’র উদ্যোগে তারা সরকারি গৌরনদী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ মসজিদে মিলাদ মাহফিল ও দোয়া মোনাজাতের আয়োজন করেন। আসরের আযান দেয়া হলে তিনিসহ স্থানীয় বিএনপি’র অঙ্গসংগঠনসহ যুবদল ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরা ওই মিলাদ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে রওনা হন। তারা গৌরনদী বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছলে সরকারি দল আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের স্থানীয় নেতা-কর্মীসহ যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা লাঠিসোঁটা নিয়ে তাদের ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়। এতে বিএনপি’র নেতা-কর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনার পরপরই সরকারি দলের নেতা-কমীরা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় একটি জঙ্গি মিছিল বের করে বিএনপি বিরোধী স্লোগান দেয়। মিছিল শেষে তারা হামলা ও মারধরের জন্য বিএনপি’র নেতা-কর্মীদের খোঁজাখুঁজি করে।
অপরদিকে একই দিন বাদজুমা গৌরনদী  পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের মোল্লাবাড়ী মসজিদে ওয়ার্ড বিএনপি’র উদ্যোগে বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় মিলাদ মাহফিল চলাকালে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা জড়ো হয়ে সেখানে অতর্কিতে হামলা চালায়। এ সময় তাদের হামলায় গৌরনদী পৌর ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মো. মিজানুর রহমান আকবরসহ জাবেদ সেলিম নামে তাদের অপর এক ছাত্রদল নেতা আহত হন। হামলাকারীরা এরপর ছাত্রদল নেতা মো. মিজানুর রহমান আকবরের বাসায় হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। ওইদিন সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিটের দিকে উপজেলার পিঙলাকাঠী বাজারে নলচিঁড়া ইউনিয়ন বিএনপি সভাপতি জামাল ফকিরকে স্টিল রেঞ্জ দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয়। তার অবস্থার অবনতি হলে শনিবার দুপুরে এম্বুলেন্সযোগে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। একই দিন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে গৌরনদী বাসস্ট্যান্ড কাঁচাবাজার এলাকায় গৌরনদী উপজেলা বিএনপি’র যুগ্ম আহ্বায়ক মো. বদিউজ্জামান মিন্টুকে জিআই পাইপ দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ হামলার পরপরই যুবলীগ ছাত্রলীগের নামধারী সন্ত্রাসীরা গৌরনদী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অসংখ্য হাত বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। এছাড়াও উপজেলা বিএনপি নেতা শরীফ মাহাবুব হোসেনসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীর ওপর হামলা চালানো হয়েছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে গৌরনদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এইচএম জয়নাল আবেদীন বলেন, দলীয় ভাবে বিএনপিকে প্রতিহত করার মতো এমন কোনো পূর্ব নির্দেশনা আমাদের নেতা কর্মীদের ওপর ছিল না। যারা হামলা করেছে তারা হয়তো ব্যক্তিগত শত্রুতা থেকে হামলা করেছে। গৌরনদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আফজাল হোসেন বলেন, হামলা বা মারধরের কোনো ঘটনা তার জানা নেই। সাংবাদিকদের মাধ্যমেই তিনি শুনেছেন। কেউ কোনো অভিযোগ করেননি। তিনি বলেন, আমরা ঘটনার অনুসন্ধান করছি। সত্যতা  পেলে আইনগত ব্যবস্থা  গ্রহণ করা হবে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর