× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ১৭ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার , ৩ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

নবাবগঞ্জে ইছামতী নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন

বাংলারজমিন

নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি
২৮ নভেম্বর ২০২১, রবিবার

ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার শিকারীপাড়া ইউনিয়নের দাউদপুর বাজার সংলগ্ন ইছামতী নদীতে ড্রেজার বসিয়ে অপরিকল্পিত বালু উত্তোলনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আইন লংঘন করে অনুমোদন ছাড়াই অবৈধভাবে বালু কাটছে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলীমোর রহমান খান পিয়ারা। লিখিত অনুমোদন ছাড়া বালু কাটার কথা স্বীকার করেছেন তিনি। এদিকে চেয়ারম্যানের এমন অবৈধ কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দাউদপুর ব্রিজ সংলগ্ন ইছামতী নদীতে বালু কাটার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। নদী থেকে অপরিকল্পিতভাবে অনুমোদন ছাড়া বালু উত্তোলন করায় দাউদপুর ব্রিজ ও আশেপাশের দোকানপাট হুমকিতে রয়েছে। এছাড়া রাস্তার ওপর দিয়ে ড্রেজার পাইপ বসানোর ফলে যানবাহন চলাচলেও বিঘ্ন ঘটছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে দাউদপুর বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, নদী থেকে এভাবে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলনের কারণে ঝুঁঁকিতে পড়তে পারে ব্রিজটি।
এছাড়া একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে এভাবে বালু উত্তোলন করা সমীচিন নয়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিকারীপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আলীমোর রহমান খান পিয়ারা বলেন, মসজিদের জায়গা ভরাটের জন্য নদীতে ড্রেজারটা বসানো হয়েছে। সেই সঙ্গে বাজারের খালটি ভরাট করেছি। তবে কারো কাছ থেকে এক টাকাও নেইনি। নদী থেকে বালু উত্তোলনে কারো অনুমোদন নিয়েছেন কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মৌখিকভাবে ইউএনও’র কাছ থেকে অনুমতি নেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এইচএম সালাউদ্দিন মনজু বলেন, নদী থেকে বালু উত্তোলনে লিখিত বা মৌখিকভাবে কাউকে অনুমতি দেয়া হয়নি। যারা এরকম কাজের সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর