× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ১৭ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার , ৩ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ
রামগঞ্জে অস্ত্রসহ আটক ৩০

লক্ষ্মীপুরে দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ৬ গাড়ি ভাঙচুর

বাংলারজমিন

লক্ষ্মীপুর সংবাদদাতা
২৯ নভেম্বর ২০২১, সোমবার

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর দক্ষিণ চরবংশীর পশ্চিম চরলক্ষ্মী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে দুই ইউপি সদস্য প্রাথীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময়  ইউপি সদস্য প্রার্থী খালেকুজ্জামানসহ ৬ জন আহত হয়। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ইউপি সদস্য প্রার্থী আলমগীর হোসেন ও খালেকুজ্জানের সমর্থকদের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। আলমগীর হোসেন তার সমর্থকদের নিয়ে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার সময় অপর প্রার্থী খালেকুজ্জামান বাধা দেয়। এতে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এর আগ একই সময় রামগঞ্জের বাদুর ইউপির আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহিদ হোসেনের গাড়িতে হামলা ও ভাঙচুর করা হয়। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে হানুবাইশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের সামনে এ ঘটনা ঘটে। অপরদিকে নির্বাচনে সহিংসতার আশঙ্কায় বাদুর ইউপির বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৩০ জনকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।
ভোরে ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে দেশীয় একটি এলজি, ছোরা ও রামদা উদ্ধার করা হয়। রামগঞ্জ থানার ওসি মো. আনোয়ার হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, নির্বাচনে সহিংসতার জন্য বাদুর ইউনিয়নের মধ্য বাদুরসহ বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নেয়। পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩০ জনকে আটক করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে এলজিসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছে।
লক্ষ্মীপুর পৌরসভা, রায়পুর ও রামগঞ্জ উপজেলার ২০টি ইউনিয়নে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। সকাল ৮টা থেকে শুরু হয় এ ভোট। তবে পুরুষের চেয়ে নারীদের উপস্থিতি বেশি ছিল। এ ছাড়া এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী।
প্রতি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। প্রতিটি কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের টহল দিতে দেখা গেছে।
লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ২৮টি কেন্দ্রের মধ্যে ২৫টিকে অতিগুরুত্বপূর্ণ। এ ছাড়া রায়পুর ও রামগঞ্জ উপজেলার ২০টি ইউনিয়নের ১৯২টি কেন্দ্রের মধ্যে বেশির ভাগ কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ। সে অনুযায়ী প্রতিটি কেন্দ্রে ব্যাপক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়োজিত ছিল।
ইতিমধ্যে রায়পুর উপজেলায় ৩ ইউপিতে চেয়ারম্যান এবং ২ উপজেলায় সংরক্ষিত মহিলা ও সাধারণ সদস্য পদে ১৬ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর