× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৯ জানুয়ারি ২০২২, শনিবার , ১৫ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

রাজারবাগ পীরের অবৈধ সম্পদের খোঁজে বিভিন্ন দপ্তরে দুদকের চিঠি

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার:
২ ডিসেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার

রাজারবাগ দরবার শরীফের পীর দিল্লুর রহমানের অবৈধ সম্পদের খোঁজে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চিঠি দিয়েছে দুদক। দুদক সচিব মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার গণমাধ্যমকে বলেন, রাজারবাগ পীরের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধানে সরকারি-বেসরকারি ৫৬টি ব্যাংক, দেশের ৬৪ জেলা রেজিস্ট্রার, বনবিভাগে চিঠি দেয়া হয়েছে। কোথায় কোথায় জমি দখল হয়েছে, কিংবা অবৈধ সম্পদ কোথায় রয়েছে, তা খতিয়ে দেখে জানানোর জন্য চিঠি দেয়া হয়েছে। দুদক সচিব ড. মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন হাওলাদার বলেন, দুদককে তদন্তে সহযোগিতা না করলে অতিরিক্ত দায়ে অভিযুক্ত হবেন পীর দিল্লুর রহমান। রাজারবাগের পীর দিল্লুর রহমানের আস্তানা সাইয়্যাদুল আইয়্যাদ শরীফে গেলেও রাজারবাগ পীর দিল্লুর রহমান দুদক টিমের সঙ্গে দেখা করেনি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে দুদক সচিব বলেন, আপনারা জানেন ২৬ (২) ধারা ২৭ (১) ধারা দুদককে অসহযোগিতা করার কোনো সুযোগ নেই। তাকে তদন্ত টিমের কাছে তার বাড়িতে দেখা করতে বলা হয়েছিল, সেখানে তার দেখা পায় নাই। যারা দুদককে সহযোগিতা করে নাই তারা দুদককে অসহযোগিতার অতিরিক্ত দায়ে অভিযুক্ত হবে।
রাজারবাগের পীরের অবৈধ সম্পদের বিষয়ে হাইকোর্টের নির্দেশনার বিষয়ে আনোয়ার হোসেন বলেন, আমরা তদন্ত ও অনুসন্ধানের জন্য তিন সদস্যের একটি টিম করেছি জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে। সেই টিমে একজন সহকারী পরিচালক এবং একজন উপ-সহকারী পরিচালক আছেন। এই তিন সদস্যেও টিম ইতোমধ্যে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেছে। বনশিল্পে চিঠি দেয়ার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে দুদক সচিব বলেন, এসব জায়গায় চিঠি দেয়া হয়েছে কারণ কোথায় কোথায় জমি দখল হয়েছে, তার নামে কোনো অবৈধ সম্পদ আছে কিনা? এই তথ্য সংগ্রহের কার্যক্রম চলমান আছে। আমরা আশা করি হাইকোর্টের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে পারবো। যদি না পারা যায়, তবে হাইকোর্ট থেকে সময় চেয়ে নেয়া হবে। জেলা রেজিস্ট্রি অফিসে চিঠি দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে আনোয়ার হোসেন বলেন, জেলা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে চিঠি দেয়া হয়েছে কারণ তার অনুকূলে কি পরিমাণ জমি রেজিস্ট্রি হয়েছে সেটি জানার জন্য। আর বনবিভাগে চিঠি দেয়া হয়েছে, কারণ আমরা শুনতে পেয়েছি তিনি রাবার বাগান দখল করেছেন। আদৌ এটা হয়েছে কিনা বনশিল্প উন্নয়ন করপোরেশন সেটা বলতে পারবে। অভিযুক্ত পীরকে দুদকে সশরীরে আসার জন্য তলব করেছেন কি না জানতে চাইলে দুদক সচিব বলেন, আমাদের টিম রাজারবাগ পরিদর্শন করেছে। আর সামনে যদি প্রয়োজন হয় তাদেরকে ডাকব। তদন্তের যেকোনো পর্যায়ে প্রয়োজন মনে করলে তাদেরকে ডাকতে পারে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর