× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২২ জানুয়ারি ২০২২, শনিবার , ৮ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

সিলেট সেনানিবাসে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ‘বজ্রকণ্ঠ’ উদ্বোধন

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে
৬ ডিসেম্বর ২০২১, সোমবার

সিলেট সেনানিবাসের মুজিব চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ‘বজ্রকণ্ঠ’ উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল সকালে সেনাপ্রধান জেনারেল এসএম শফিউদ্দিন আহমদ এই ভাস্কর্যের উদ্বোধন করেন। এ সময় সেনাপ্রধান বলেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দেশে-বিদেশে তার উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালনে সক্ষম। সেনাবাহিনীর আধুনিকায়নে প্রধানমন্ত্রীর অক্লান্ত পরিশ্রম ও সহযোগিতা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী সেনাবাহিনীকে গর্বের জায়গায় দেখতে চান বলে মন্তব্য করেন সেনাপ্রধান। তিনি বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও মুজিবশতবর্ষে এই ম্যুরাল উদ্বোধন সৌভাগ্যের ব্যাপার। জাতির জনকের এই ভাস্কর্য শুধু প্রদর্শনের জন্যই নয়, স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাসের প্রতি নতুন প্রজন্মের আগ্রহ জন্মাবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। সেনা সদস্যদের পাশাপাশি বাইরের লোকজনও এই ভাস্কর্য দেখতে ও এর প্রতি সম্মান জানাতে পারবে; এমনটাই জানান সেনাপ্রধান।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সেনাবাহিনীর অ্যাডজুটেন্ট জেনারেল, সেনাকল্যাণ সংস্থার এবং সেনাসদর থেকে আগত অন্যান্য উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও অনুষ্ঠানে ১৭ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও সিলেট এরিয়া কমান্ড্যান্ট এসআইএন্ডটিসহ এ এরিয়ায় কর্মরত অফিসার, জেসিও এবং অন্যান্য পদবীর সেনাসদস্যরাও উপস্থিত ছিলেন। সিলেট সেনানিবাসের চেকপোস্ট থেকে প্রায় দুশ’ মিটার পূর্বে অবস্থিত গোল চত্বরের নাম ‘মুজিব চত্বর’। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীকে স্মরণীয় করে রাখতে এই চত্বরেই তার ভাস্কর্য ‘বজ্রকণ্ঠ’ স্থাপন করা হয়েছে। সিলেট সেনানিবাসে মুজিব চত্বরে স্থাপিত ভাস্কর্যটির বেজমেন্ট ৬ ফুট ও মূল ভাস্কর্য ১৯ ফুট দীর্ঘ। সেনাবাহিনীর সিলেট এরিয়া সদর দপ্তরের তত্ত্বাবধানে স্থাপিত হয় ভাস্কর্যটি। দৃষ্টিনন্দন ভাস্কর্যটি সিলেট-তামাবিল সড়ক থেকেও দেখা যায়। এর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন যেমন হলো, তেমনি আগামীতে ভাস্কর্যটি তার আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে উজ্জীবিত করবে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর