× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২১ জানুয়ারি ২০২২, শুক্রবার , ৭ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

বাঁশখালীতে সরকারি পাহাড় উদ্ধার

বাংলারজমিন

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি
৬ ডিসেম্বর ২০২১, সোমবার

চট্টগ্রাম বাঁশখালীতে ভূমিদস্যু হতে সরকারি পাহাড় উদ্ধার করলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক। গতকাল দুপুর ১টায় বাঁশখালী উপজেলা ভূমি অফিস এবং জলদী ইউনিয়ন ভূমি অফিস যৌথভাবে সরকারি খাস জমির ওপর সাইনবোর্ড দিয়ে এই উদ্ধার অভিযান কার্যকর করেন। অভিযানে এক একর জমি উদ্ধার হয়।
জানা যায়, স্থানীয় ভূমিদস্যু মাওলানা মোহাম্মদ নুরুচ্ছাফা উত্তর জলদীর ৫নং ওয়ার্ডের এই সরকারি সম্পত্তি দীর্ঘদিন ধরে গ্রাস করছিল। অবৈধভাবে সরকারি ১২ শতক জমি নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প দিয়ে মনির আহমদ গংয়ের কাছে ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জলদী ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা চন্দন দাশ, বাঁশখালী উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মো. আমানাতুল মাওলাসহ বাঁশখালী ভূমি অফিসের কর্মচারীরা।
সরকারি জমি উদ্ধার হওয়ার পরে কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সবাই স্বাগত জানাই এই জন্য যে, আমাদের এলাকায় প্রতিনিয়ত দস্যুতা বেড়েই চলছে। বিশেষ করে যারা সরকারি পাহাড় কিংবা জমির ওপর জোর করে বসবাস করছে তারা আমাদের পাহাড়ি এলাকাগুলো তন্ন তন্ন করে ফেলছে। যেমন, গর্জন বাগানগুলো নিপাত করেছে। শুষ্ক মৌসুম এলে পাহাড়ের লাল মাটি বিক্রি করে অনেকে রাতারাতি আঙুল ফুলে কলাগাছও হয়ে গেছে।
এভাবে সরকারি পাহাড় ও জমি উদ্ধার অভিযান অব্যাহত থাকলে হয়তো একদিন সব দস্যুতা সরকারের নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। এই ব্যাপারে বাঁশখালী উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মো. আমানাতুল মাওলা বলেন, স্থানীয় ভূমিদস্যু সরকারি পাহাড় দখল করে রয়েছেন। সেগুলো আমরা আমাদের জেলা প্রশাসক মহোদয়ের আদেশক্রমে সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দিই। পর্যায়ক্রমে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আদেশ পেলে সঙ্গে সঙ্গে আমরা তা কার্যকর করতে বাধ্য থাকবো। জলদী ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা চন্দন দাশ বলেন, একজন সরকারি কর্মচারী হিসাবে মাঝে মাঝে এরকম সরকারি সম্পদগুলো উদ্ধার করতে পারলে আমার মাঝে আত্মতৃপ্তি বেড়ে যায়।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর