× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২২ জানুয়ারি ২০২২, শনিবার , ৮ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

সেমিনারে ড. বিজন কুমার শীল: দ্রুত ছড়ালেও ভয়ঙ্কর নয় ওমিক্রন

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার
৮ ডিসেম্বর ২০২১, বুধবার

ধারণার চেয়েও দ্রুত ছড়াচ্ছে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন। যা ইতিমধ্যে ৪৫টি দেশে শনাক্ত হয়েছে। তবে ডেল্টা ধরনের ন্যায় এটি ভয়ঙ্কর নয়। গতকাল রাজধানীর ধানমণ্ডিতে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে কোভিড-১৯ ভ্যারিয়েন্ট অব কনসার্ন ডেল্টা-ওমিক্রন’ ভিত্তিক-বিজ্ঞান, নৈতিকতা ও বৈষম্য বিষয়ক এক সেমিনারে এই তথ্য জানানো হয়। এ সময় মূল প্রবন্ধ তুলে ধরেন গণবিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. বিজন কুমার শীল। অনুষ্ঠানে জুমের মাধ্যমে বক্তব্য রাখেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী এবং বিএসএমএমইউ’র ফার্মাকোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. সায়েদুর রহমান। সেমিনার পরিচালনা করেন গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিকেল কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ডা. মুহিব উল্লাহ খোন্দকার।

ড. বিজন কুমার বলেন, ওমিক্রনকে ভয়ঙ্কর ভাবার কারণ এর মিউটেশন। এখন পর্যন্ত ডেল্টা ধরনের সর্বোচ্চ ১৫টি মিউটেশন হয়েছে।
সেখানে ওমিক্রনের হয়েছে ৫০টি। যার ৩২টি স্পাইক প্রোটিন। যা দিয়ে সে মানুষকে খুব কম সময়ে সংক্রমিত করে এবং এর মাধ্যমে ভ্যাকসিন তৈরি করা হয়। এই যে ব্যাপক পরিবর্তন। এতে করে ধরনটি শক্তিশালী হওয়ার পাশাপাশি ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা কমে যেতে পারে। আর এ জন্যই মনে করা হচ্ছে, হয়তো ওমিক্রন ডেল্টার চেয়েও ভয়ানক হবে। তিনি বলেন, ফিউরিন নামক একটি প্রোটিন পুরো ভাইরাসের বৈশিষ্ট্যকে পরিবর্তন করে দিতে পারে। এটি সার্সকপ-১ এ ছিল না, তবে সার্সকপ-২তে আছে। এখন এটি যদি আরও বিস্তার লাভ করে তাহলে ডেল্টার চেয়েও মারাত্মক হতে পারে। তবে এই মুহূর্তে ডেল্টার মতো আতঙ্কিত করার মতো অবস্থায় যায়নি ওমিক্রন। তবে এটাই শেষ নয়, খারাপ হতে পারে। আফ্রিকা থেকে অন্যান্য দেশে শনাক্তের পর এটি আরও শক্তিশালী হয়েছে, সংক্রমণ যত বাড়বে ততটাই এটি মারাত্মক হতে থাকবে। এই গবেষক বলেন, ইতিমধ্যে যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন, তারা অনেকটা সুরক্ষিত। তবে এর বিপরীতে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা কতোটুকু সেটি সম্পর্কে এখনো পর্যালোচনা চলছে। একই অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. সায়েদুর রহমান খসরু বলনে, একদিনের লকডাউনে তিন হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়। অথচ যদি বিনা টাকায় নমুনা পরীক্ষা করা যেত, প্রয়োজনে বাড়িতে গিয়ে পরীক্ষা করাতে পারতাম তাহলে অর্থনীতি সচল থাকতো। এই দেশে এমন অনেক মানুষ আছে, যাদের অর্ধেক বেলা খাবারের জন্য কাজ ফেলে আসা সম্ভব নয়। প্রয়োজনে পরীক্ষার জন্য মানুষকে টাকা দিতে হবে, তবেই আমরা লকডাউন নামক এই জঞ্জাল থেকে মুক্তি পাবো। তিনি বলেন, দেশের ১৫ কোটি মানুষকে ৩০ কোটি মাস্ক বিনামূল্যে দিতে কি সমস্যা। সাদা-লাল রংয়ের দুই ধরনের মাস্ক দিয়ে বিশেষ ব্যবস্থায় প্রতিটি শহরে সাতদিনের মধ্যে মানুষকে সচেতন করা যায়। ১৬ই ডিসেম্বর থেকে শুরু করেন, এতে সরকারের পদক্ষেপ সম্পর্কে মানুষ জানতে পারবে, গুরুত্ব দেবে। একই সঙ্গে প্রচুর বিশ্ববিদ্যালয়ে সিক্যুয়েন্স করার সক্ষমতা আছে, পিসিআর পরীক্ষা একেবারেই সহজ অবস্থায়। তাহলে এমন একটা সিদ্ধান্ত নিতে কি এত সময় লাগে? এখন রেস্টুরেন্টে গেলে ভ্যাকসিন সনদ চায়। আমরা জানি, নিবন্ধিত ৮০ থেকে ৯০ লাখ এবং নিবন্ধন ছাড়া প্রায় কোটির মতো বয়স্ক মানুষ এখনো টিকার বাইরে। আমাদের বুঝতে হবে ঝুঁকি কার বেশি। ঝুঁকিতে থাকা মানুষের টিকা নিশ্চিত না করে নিচে নেমে আসা, বুস্টার ডোজ দেয়া অনৈতিক, এটা বিজ্ঞানসম্মত নয়। যেখানে মৃতদের বেশির ভাগেই বয়স্ক, সেখানে তারা টিকার বাইরে থাকার তো কোনো কারণ নেই। জুমে সেমিনারে অংশগ্রহণ করে গণস্বাস্থ্যের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একজনও সায়েন্স (বিজ্ঞান) পড়েনি। মন্ত্রী সাহেবও বিজ্ঞান বোঝেন না, সেক্রেটারি সাহেবও কোনোদিন বিজ্ঞান পড়েছেন কিনা জানি না। অথবা এখানে লেনদেনের সুবিধা নেই বলে তাদের সময় নেই। ওনাদের উৎসাহ অনেক বেশি দ্বিগুণ দামে ভ্যাকসিন কিনতে। প্রায় ১৪ ডলার দিয়ে তারা ভ্যাকসিন ক্রয় করেছেন প্লেনের ভাড়া ছাড়াই। তিনি আরও বলেন, আমাদের (গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র) একটাই অপরাধ আমরা কিট নিয়ে ব্যবসা করতে চাইনি। মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে ব্যবসা একটি অত্যন্ত ঘৃণ্য অপরাধ বলে আমি মনে করি। বর্তমানে সময়ে মেডিক্যাল সায়েন্স এবং মেডিক্যাল পলিটিক্সটাকে আরও ভালোভাবে বোঝা দরকার বলে তিনি মন্তব্য করেন।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Professor Dr, Mohamm
৮ ডিসেম্বর ২০২১, বুধবার, ২:৩৮

“দ্রুত ছড়ালেও ভয়ঙ্কর নয় ওমিক্রন সেমিনারে ড. বিজন কুমার শীল” ব্যাপারটি সহজ ভাবে নিতে পারছিনা কারন, আমাদের কাছে এর বয়স মাত্র ১৪ দিন । করোনা -১৯ নিয়েও আমরা গা ছাড়া ভাব দেখাচ্ছিলাম তার কারনে আজ পর্যন্ত ২৮০০১ জনের মৃত্যু হয়েছে । অধিকন্তু, মাত্র ১৪ দিনে আমরা তেমন কিছুই উপরোক্ত ভাইরাস সম্পর্কে জানতে পারিনি । সুতরাং , বিভ্রান্ত না হয়ে যারা ভ্যাক্সিন নেন নি তাদের ভাক্সিন নেয়া বাদ্ধতামুলক করে যানবাহন এবং অফিস আদালতে বা জনবহুল এলাকায় মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করার জন্য সরকারি ঘোষণা আশা উচিত । যদিও বাংলাদেশে এর সংক্রমণ ঘটেনি তাই বলে তার ভয়াবহতা সম্পর্কে আমাদের সজাগ থাকতে দোষ কি?

অন্যান্য খবর