× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ১৬ মে ২০২২, সোমবার , ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৪ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

শীতের ডায়েরি- /ডালিম কেন খাবেন?

শরীর ও মন

মানবজমিন ডিজিটাল
১১ জানুয়ারি ২০২২, মঙ্গলবার

শীতকালীন ফল ডালিমের রসে ফ্রুক্টোজ থাকলেও এটি অন্য ফলের মতো রক্তে চিনির মাত্রা বাড়ায় না। ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে রক্তে চিনির মাত্রা ঠিক রাখতে ডালিমের ভূমিকা অনন্য।
এর বাইরেও ডালিমের চমৎকার সব উপকারিতা রয়েছে। যেমন-

# মানবদেহ থেকে মুক্ত ক্ষতিকর সব উপাদান কমিয়ে ক্যানসারের ঝুঁকি কমায় ডালিমের রস। যেসব মুক্ত উপাদান নানান রকম রোগ সৃষ্টি করে।
# ডালিমে থাকা ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধী গুণাগুণ শরীরের ক্ষতিকর ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে লড়ার পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলে দারুণভাবে।
# ডালিমে থাকে ডায়াটারি ফাইবার । দ্রবণীয় ও অদ্রবণীয় দুই ধরনের ফাইবার থাকায় এটি আমাদের হজমশক্তি বাড়ায়, পাশাপাশি অন্ত্রের নড়াচড়া স্বাভাবিক রাখে।
#ডালিমে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রক্তের কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।
# জ্বর হলে ডালিমের রস চিবিয়ে খাওয়া যেতে পারে।
এতে শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে আসে সহজেই।
# আয়রন, ক্যালসিয়াম, শর্করা, ফাইবার সমৃদ্ধ ডালিম রক্তে হিমোগ্লোবিন বৃদ্ধি করে। যা দেহে রক্ত চলাচল সচল রাখে। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, প্রতিদিন একটি ডালিম খাওয়ার চেষ্টা করুন। অথবা এক গ্লাস ডালিমের রস খান।

এর বাইরেও ডালিমে থাকা রাসায়নিক উপাদান : পাতায় থাকে বেটুলিক এবং আরসোলিক এসিড, বিটা সিটোস্টেরল। কান্ডের বাকলে থাকে ডি ম্যানিটল, অক্সিম, ফ্রিয়েডেলিন, পেলিটিয়েরিন। ফলের পেরিকার্পে (বাকলে) থাকে ট্যানিন, এলাজিক, সাইট্রিক এসিড এবং আরসোলিক এসিড এবং পেলিটিয়েরিন, সিউডো, পেলিটিয়েরিন, আইসোপেলিটিয়েরিন, মিথাইল, পেরিটিয়েরিন মূলে থাকে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর