× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ১০ আগস্ট ২০২২, বুধবার , ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১২ মহরম ১৪৪৪ হিঃ

কলকাতা কথকতা   /সাগরে পুণ্যস্নান সারলেন সাড়ে তিন লাখ মানুষ, ই-স্নান প্রায় এক কোটির

কলকাতা কথকতা

জয়ন্ত চক্রবর্তী, কলকাতা
(৬ মাস আগে) জানুয়ারি ১৪, ২০২২, শুক্রবার, ৯:২৭ পূর্বাহ্ন

কথায় বলে- সব তীর্থ বারবার গঙ্গাসাগর একবার। প্রবল করোনা আবহেও  শুক্রবার মকর সংক্রান্তির উষালগ্নে সাগরে স্নান সারলেন প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষ। আর ই-স্নান করলেন ৯৯ লাখ ২ হাজার পুণ্যার্থী। ১৩টি চেকিং পয়েন্টের বাধা টপকে সাড়ে তিন লাখ পুণ্যার্থী সাগরে পৌঁছান এবং শুক্রবার ভোরে ব্রাহ্ম মুহূর্তে স্নান সারেন। মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের সাংবাদিক বৈঠকে দেয়া তথ্য অনুযায়ী এই সাড়ে তিন লাখ পুণ্যার্থীর মধ্যে মাত্র ১৩ জন করোনা পজিটিভ ছিলেন। তাঁদের সবাইকে গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। শুক্রবার সকালের পুণ্যস্নানে  না ছিল মাস্কের ব্যবহার, না ছিল সোশ্যাল ডিসটেন্স। গা ঘেঁষাঘেঁষি করেই স্নানের পর্ব চলে।
প্রশাসন অবশ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থায় কোনো ফাঁক রাখেনি। শুক্রবার সারাদিন ধরেই চলবে স্নান। পুরান বলে এই দিনটিতে সূর্যদেব তাঁর পুত্র শনিদেবের অলয়ে আসেন। তাই, এই দিনটিতে সূর্যপ্রণাম করে স্নান সারেন পুণ্যার্থীরা। আর একটি মত হলো- এই দিনটিতে দেবতা ও অসুরদের মধ্যে যুদ্ধ সমাপন হয়ে দেবতারা বিজয়ী হয়েছিলেন। যাই হোক না কেন, পুণ্যের টানে সারা ভারতের সমাগম হয় গঙ্গাসাগরে। করোনার ভ্রুকুটি হার মানে মানুষের বিশ্বাসের কাছে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
১৩ জানুয়ারি ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৮:৪৭

হুজোগ । এই সব হুজোগে মৃত্যু হবে অনেকের। পুন্য অর্জন সারাজীবন আর হবে না ।

অন্যান্য খবর