× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২৯ মে ২০২২, রবিবার , ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

'নতুন আমার এক অংশের মুখ দেখার অপেক্ষায় দিন পার করছি'

বিনোদন

স্টাফ রিপোর্টার
১৪ জানুয়ারি ২০২২, শুক্রবার

জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি তৃতীয় সন্তানের মা হতে যাচ্ছেন। সুখবরটি গত রাতে একটি ফেসবুক পোস্টে জানান তিনি। পাশাপাশি কয়েকটি অনলাইন পোর্টালের খবরে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। ন্যান্সি লিখেছেন, আমার স্বামী মহসিন মেহেদী এবং আমি নাজমুন মুনিরা। আমাদের দুজনের নামের সংক্ষিপ্ত রূপ মেহেনাজ। আমাদের এত দিনে মিডিয়া জগতের সিংহ ভাগ মানুষ মেহেনাজ নামেই চেনে। 'মেহেনাজ' নামটি কী করে আজ আমার অনাগত সন্তানের নাম হয়ে গেল, সেটা বুঝলাম না! আবার অনেকে নিজ বুদ্ধিতে ধরে নিচ্ছেন আমি কন্যাসন্তানের মা হব বলে নাম রেখেছি মেহেনাজ!
আমাদের বিয়ের বয়স পাঁচ মাস চলছে। সব ঠিকঠাক থাকলে রিপোর্ট অনুযায়ী আমার গর্ভের সন্তানের জন্মের সময় দেখাচ্ছে জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে।
গর্ভধারণের শুরুতে কী করে জানব কাঙ্ক্ষিত সন্তানটি ছেলে কিংবা মেয়ে! ন্যান্সি বলেন, অনেকে নিজ দায়িত্বে আমার বক্তব্য মনের মাধুরী মিশিয়ে লিখেছেন। আমার বক্তব্য এমন - আমি খুবই আনন্দিত | পূর্বে সিজারের মাধ্যমে সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে অনেক জটিলতা হয়েছে। আমি ভাবতেই পারিনি আর কখনো মা হব!
এই কণ্ঠশিল্পী বলেন, আমি এসব আজগুবি লেখা পড়ে হতবাক হয়ে যাই। আমি এখন পর্যন্ত কোনো সাংবাদিকের সঙ্গে এ ব্যাপারে কোনো কথাই বলিনি। তাহলে আমার এ বক্তব্য কি আমার প্রেতাত্মা এসে জানিয়েছে! সন্তান জন্ম দেওয়া- হোক সেটা প্রথম কিংবা পঞ্চম; প্রতিবারই তীব্র আনন্দ এবং শারীরিক যন্ত্রণার মধ্য দিয়ে একজন মাকে যেতে হয়। আমিও তার ব্যতিক্রম নই। নতুন আমার এক অংশের মুখ দেখার অপেক্ষায় দিন পার করছি। এ অপেক্ষা মধুর।
বিকৃত রুচির নারী-পুরুষের জন্য আনন্দ নষ্ট করবেন না জানিয়ে ন্যান্সি লেখেন, অনেক অযাচিত লোকের আমার জীবনের সুখবরটি শুনে গাত্রদাহ হচ্ছে জানি! গালিগালাজ করার জন্য ইতিমধ্যেই জিহ্বাতে ধার দিয়ে রেখেছেন! বিশ্বাস করেন, আপনাদের আমার জীবনে থাকা না থাকাতে আমার কিচ্ছু আসে যায় না। কোনো বিকৃত রুচির নারী-পুরুষের জন্য মেহেনাজ পরিবার তাদের আনন্দ বিসর্জন দেবে না।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর