× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২১ মে ২০২২, শনিবার , ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

মান্দায় বাঁধ কেটে শতাধিক বিঘা ধান নষ্ট, প্রতিবাদে মানববন্ধন

বাংলারজমিন

নওগাঁ প্রতিনিধি
১৬ জানুয়ারি ২০২২, রবিবার

নওগাঁর মান্দায় বাঁধ কেটে তলিয়ে দিয়ে শতাধিক বিঘা জমির বোরো ধান নষ্ট করা ও ধানচাষের দুইটি পাওয়ার টিলার ও ২০ শ্যালো মেশিন পুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রভাবশালীদের ভাড়াটিয়া বাহিনীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল দুপুরে পাকুড়িয়া শহীদ বাজারে বধ্যভূমির সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছেন ভূমিহীন পরিবারের সদস্যরা।
মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন পাকুড়িয়া-কালিসভা ভূমিহীন সমিতির সভাপতি দানেছ আলী প্রামাণিক, সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান, মমতাজ উদ্দিন, মোবারক হোসেন, নাসির উদ্দিন, রুবিনা বিবি প্রমুখ। পাকুড়িয়া ভূমিহীন সমিতির সভাপতি দানেছ আলী প্রামাণিক বলেন, বিল উথরাইল জলমহালের ৯৩৩ একর খাস জমির মধ্যে শতাধিক বিঘা পাকুড়িয়া ও কালিসফা গ্রামের ভূমিহীন ৮০ পরিবার দীর্ঘদিন ধরে ভোগদখল করে আসছে। বর্ষা মৌসুমে বিলে মাছ শিকার করেন মৎসজীবী ও ভূমিহীন পরিবারের লোকজন। তিনি আরও বলেন, ওই সম্পত্তি দখল নিতে দীর্ঘদিন ধরে পাঁয়তারা করে আসছিলেন পাকুড়িয়া গ্রামের আতাউর রহমান ও ফারুক আহমেদ। গত শুক্রবার জুমার নামাজের সময় আতাউর ও ফারুকের নেতৃত্বে শতাধিক ভাড়াটিয়া বাহিনী বাঁধ কেটে দিয়ে ভূমিহীনদের রোপণকৃত বোরো ধান তলিয়ে দেন। এতে ব্যক্তি মালিকানারও অন্তত ২০ বিঘা জমির ধান তলিয়ে গেছে।
প্রভাবশালীদের ভাড়াটিয়া বাহিনী এ সময় হালচাষে ব্যবহৃত দুইটি পাওয়ার টিলার ও পানি সেচের ২০টি শ্যালো মেশিন পুড়িয়ে দেয়।
সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান বলেন, ভূমিহীনদের এসব জমি দখল নিতে দীর্ঘদিন ধরে পাঁয়তারা করছেন আতাউর রহমান ও ফারুক আহমেদ। এসব জমি চাষ করতে তাদের কাছ থেকে চাঁদাও দাবি করেন তারা। চাঁদা না দেয়ায় সরকারি সম্পত্তি থেকে তাদের উচ্ছেদের চক্রান্ত করে। ভূমিহীন মমতাজ হোসেন বলেন, খাস সম্পত্তির দখল নিতে শুক্রবার রাতে ফারুক আহমেদ বাদী হয়ে ভূমিহীন পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে মান্দা থানায় একটি সাজানো মামলা দিয়েছে। মামলার পর আসামি ধরার নামে ওই রাতেই পুলিশ ভূমিহীনদের বাড়ি বাড়ি হানা দিয়েছে। এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত ফারুক আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি  বাঁধ কেটে ধান তলিয়ে দেয়া, পাওয়ার টিলার ও শ্যালো মেশিন পুড়িয়ে দেয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, বরং আমার দখলে থাকা সম্পত্তিতে ধান লাগানোর সময় প্রতিপক্ষরা হামলা চালিয়ে আমার ৪ শ্রমিককে জখম করেছে। তারা তাদের অপরাধ ঢাকতে আমাদের নামে মিথ্যাচার করছে।
আতাউর রহমান বলেন, আমাদের শ্রমিককে মারপিটের পর তারা নিজেরাই মেশিন ভেঙে আমাদের ওপর দায় চাপানোর পাঁয়তারা করছে বলেও দাবি করেন তিনি। মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুর রহমান বলেন, বিল উথরাইলে মারপিটের ঘটনায় ফারুক আহমেদ বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। ওই মামলার আসামি গ্রেপ্তারে শুক্রবার রাতে অভিযান করা হয়েছিল। ওসি শাহিনুর আরও বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের লোকজনও মামলা করতে পারেন।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর