× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ১৮ মে ২০২২, বুধবার , ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৬ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

মিশা-জায়েদ প্যানেলে মৌসুমী, সব পরিষ্কার করলেন সানী

বিনোদন

মানবজমিন ডিজিটাল
১৭ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার

কিছুদিন পরই শিল্পী সমিতির নির্বাচন। আর বাংলা চলচ্চিত্রের প্রিয়দর্শিনী অভিনেত্রী মৌসুমী ২০১৯-২১ মেয়াদে সভাপতি পদে শিল্পী সমিতির নির্বাচন করেছিলেন। সেবার তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী প্যানেলে ছিলেন মিশা সওদাগর-জায়েদ খান। আর এবারের নতুন মেয়াদে শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সেই প্রতিদ্বন্দ্বী প্যানেলেই যুক্ত হয়েছেন মৌসুমী। কার্যকরী পরিষদের সদস্য হয়ে নির্বাচন করছেন এবার মৌসুমী।

এ নিয়ে নানা রকম কথা চলছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও সংবাদমাধ্যমে। বিষয়টি পরিষ্কার করতে গতকাল সন্ধ্যায় ফেসবুক লাইভে আসেন চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় মুখ ওমর সানী। এ সময় তার সঙ্গে সাংবাদিকরাও উপস্থিত ছিলেন। ওমর সানী লাইভে জানান, মৌসুমীর ২০১৯-২১ মেয়াদ শুধু না, কখনই নির্বাচন করার ইচ্ছা ছিল না, কিন্তু চলচ্চিত্রের মানুষ হিসেবে তাঁর কিছু দায়িত্ব থাকে।
সেই দায়িত্ব এবং সে সময় অনেকের অনুরোধে নির্বাচন করেন মৌসুমী।

সেই মেয়াদে মৌসুমী বিজয়ী হতে পারেননি। তাহলে এখন কেন আবার সেই প্রতিদ্বন্দ্বীদের সঙ্গেই নির্বাচন করছেন জানতে চাইলে সানী বলেন, ‘আমি আর মৌসুমী একটি সিনেমা করতে গেলাম, নাম সোনার চর। আমরা যখন সিনেমাটিতে চুক্তিবদ্ধ হই, তখন জায়েদের অভিনয় করার কথা না। সে পরে যুক্ত হয়, তার সঙ্গে অনেক কথা হয় এবং তাকে আমরা বুঝতে পারি।’

সানী আরও বলেন, ‘তাছাড়া মৌসুমী গণমাধ্যমে বলেছে, করোনার মধ্যে মিশা-জায়েদের যে কাজ, সেটি প্রশংসার যোগ্য, সেগুলো বিচার করেই মৌসুমী তাদের সঙ্গে নির্বাচন করতে গেছে।’ আগের কিছু কথা স্মৃতিচারণ করে সানী বলেন, ‘২০১৯-২১ মেয়াদে ফেরদৌস, রিয়াজ, সাইমন, পপিদের নিয়েই মৌসুমীর প্যানেল হওয়ার কথা ছিল; কিন্তু তারা পরে সবাই যার যার মতো করে চলে গেছে। এবার, অর্থাৎ ২০২২-২৪ মেয়াদে যখন তারাই আবার প্যানেল করে, তখন মৌসুমীর কাছে তারা কথা বলতে আসেনি।’

লাইভে এবং সংবাদকর্মীদের সামনে এক এক করে সব বিষয় পরিষ্কার করেন ওমর সানী।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর