× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২০ মে ২০২২, শুক্রবার , ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৮ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

সরকারি চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারণা করতো ওরা

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
১৮ জানুয়ারি ২০২২, মঙ্গলবার

সরকারি চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে টাকা আত্মসাৎকারী চক্রের মূল হোতাসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। চক্রটি চাকরি দেয়ার কথা বলে হাতিয়ে নিয়েছে লাখ লাখ টাকা। টাকা আত্মসাতের জন্য তারা ভুয়া নিয়োগপত্র দিতেন। ভুক্তভোগীর বিশ্বাস অর্জনে তারা ব্লাঙ্ক চেক ও ব্লাঙ্ক স্ট্যাম্প নিতেন। গতকাল দুপুরে রাজধানীর মালিবাগ সিআইডি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ঢাকা মেট্রো সিআইডি’র অতিরিক্ত ডিআইজি মো. ইমাম হোসেন।
তিনি বলেন, রাজধানীর পল্টন থানায় মিরাজুল ইসলাম নামে (৩১) এক ভুক্তভোগীসহ আরও চার ভুক্তভোগী এমন অভিযোগ করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে রোববার চক্রের মূলহোতা হারুন অর-রশিদ (৩৬)কে ঢাকার কেরানীগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে সেকেন্দার আলী (৩৪) ও মাসুদ রানা (২৩)কে কাফরুল থানার মিরপুর-১৪ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের ভুয়া নিয়োগপত্র ৪টি, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের আবেদনপত্র ৩টি, ভুক্তভোগীদের স্বাক্ষরিত বিভিন্ন ব্যাংকের ব্লাঙ্ক চেক ৬টি, ভুক্তভোগীদের স্বাক্ষরিত স্ট্যাম্প ২৪টি, মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর সরকারি চাকরির জন্য সুপারিশকৃত ভুয়া ডিও লেটার ও বিভিন্ন ব্যক্তিদের ছবি ও অন্যান্য কাগজপত্র সংবলিত বায়োডাটা উদ্ধার করা হয়।
ইমাম হোসেন বলেন, যেসব চাকরিতে পদ কম থাকে সেইসব চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখায় চক্রটি।
কারণ ওইসব চাকরি হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। বেকার যুবকদের চাকরির অফার দিলে অনেকেই রাজি হন। এরপর চক্রটি তিন থেকে পাঁচ লাখ টাকা অগ্রিম নিয়ে নেয়। কাকতালীয়ভাবে কখনো কারও চাকরি হয়ে গেলে তার কাছ থেকে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত নেয় চক্রটি। শুধু তাই নয়, চক্রটি বদলি বাণিজ্যের সঙ্গেও জড়িত। বিভিন্ন মানবিক কারণ দেখিয়ে প্রতিষ্ঠান থেকে বদলিতে আগ্রহীদের জন্য তদবির করতো চক্রটি।
সিআইডি’র এই কর্মকর্তা বলেন, বিশ্বাস অর্জনের জন্য চক্রটি চাকরি পাবার পর বাকি টাকা নেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়। আবার ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে ব্লাঙ্ক চেক ও ব্লাঙ্ক স্ট্যাম্প নিয়ে বিশ্বাস করানোর চেষ্টা করে। চাকরি আপনার হবেই এই কথা বলে। এভাবেই প্রতারক চক্রটি ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে চাকরিপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে। চক্রটি অভিনব কায়দায় বিশ্বাস অর্জন করে চাকরি দেয়ার কথা বলে হাতিয়ে নিয়েছে লাখ লাখ টাকা। টাকা আত্মসাতের জন্য তারা ভুয়া নিয়োগপত্র দিতেন। চাকরির নিশ্চয়তা দিয়ে অগ্রিম টাকা নেয়ার সময় ভুক্তভোগীর বিশ্বাস অর্জনে তারা ব্লাঙ্ক চেক ও ব্লাঙ্ক স্ট্যাম্প নিতেন বলেও জানান সিআইডি’র এই কর্মকর্তা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর