× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ১৭ মে ২০২২, মঙ্গলবার , ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৫ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র উত্তেজনা কমাতে ব্লিনকেন মিশন

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(৩ মাস আগে) জানুয়ারি ১৯, ২০২২, বুধবার, ১১:১১ পূর্বাহ্ন

ইউক্রেন নিয়ে সৃষ্ট উত্তেজনা নিরসনের চেষ্টা চালাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার শীর্ষ কূটনীতিক পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেনকে এ দায়িত্ব দিয়ে জেনেভা পাঠাচ্ছেন। সেখানে এ সপ্তাহে শুক্রবার রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সঙ্গে তার সাক্ষাত হওয়ার কথা রয়েছে। এর আগে তিনি কিয়েছে ইউক্রেনের নেতা ও বার্লিনে ইউরোপিয়ান কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

ইউক্রেন সীমান্তের কাছে রাশিয়া প্রায় এক লাখ সেনা মোতায়েন করেছে। এতে ইউক্রেন ও পশ্চিমারা আতঙ্ক প্রকাশ করেছে, রাশিয়া সামরিক আগ্রাসন চালাতে পারে ইউক্রেনে। এ নিয়ে পশ্চিমারা, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। ফলে ওই অঞ্চলে একটি সম্ভাব্য যুদ্ধের পরিস্থিতি বিরাজ করছে।
এই যখন অবস্থা তখন জো বাইডেনের বারতা নিয়ে এই মিশনে আসছেন তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র একজন কর্মকর্তা মঙ্গলবার বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধ চায় না। চায় শান্তি। ওই কর্মকর্তা সাংবাদিকদের বলেন, এই উত্তেজনা বন্ধে নিজের ক্ষমতা ব্যবহার করে পদক্ষেপ নিতে পারেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। তিনি তা করলে যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়ার মধ্যে একটি সম্পর্ক গড়ে উঠবে। সেই সম্পর্ক হবে কোনো শত্রুতা বা সংকটকেন্দ্রিক নয়।

ওদিকে নতুন করে সামরিক আগ্রাসনের পরিকল্পনার কথা প্রত্যাখ্যান করেছে রাশিয়া। একই সঙ্গে বেশ কিছু শর্ত জুড়ে দিয়েছে। তারা বলেছে, এসব শর্তে তাদের সঙ্গে যদি পশ্চিমারা একমত না হয়, তাহলে সামরিক পদক্ষেপ নেবে। কি হবে সেই সামরিক পদক্ষেপ সে সম্পর্কে পরিষ্কার করেনি রাশিয়া।

আজ বুধবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী দমিত্র কুলেবা’র সঙ্গে সাক্ষাত করার কথা রয়েছে অ্যান্টনি ব্লিনকেনের। এরপর বার্লিনে তিনি সাক্ষাত করবেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বায়েরবকের সঙ্গে। পরে বৈঠক করবেন ট্রান্সআটলান্টিক কোয়াডের সঙ্গে। এই সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন, ফ্রান্স ও জার্মানি।
যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এসব আলোচনায় স্থান পাবে রাশিয়া বিষয়ে বড় রকমের পরিণতি এবং মারাত্মক অর্থনৈতিক বিষয়গুলোর প্রস্তুতি নিয়ে।

শুক্রবার জেনেভায় রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সঙ্গে বৈঠক করবেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন। মঙ্গলবার এ দু’নেতার মধ্যে কথা হয়েছে ফোনে। তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, মুখোমুখি আলোচনা হবে উত্তম। আলাদাভাবে ল্যাভরভ বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের কূটনৈতিক প্রচেষ্টাকে স্বাগত জানায় মস্কো। এ সময় তিনি ইউক্রেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ পুনর্ব্যক্ত করেন। বলেন, ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে রাশিয়াপন্থি স্বাধীনতাকামী এবং ইউক্রেনের সরকারি বাহিনীর মধ্যে সংঘাত সমাধানের জন্য যে চুক্তি হয়েছিল, তার বিরুদ্ধে স্যাবোটাজ করছে ইউক্রেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সিনিয়র ওই কর্মকর্তা আরো বলেছেন, এ মাসে উত্তেজনা কমাতে কূটনৈতিক প্রচেষ্টা নেয়ার পরও মস্কো জানুয়ারি বা ফেব্রুয়ারিতে যেকোনো সময় ইউক্রেনে হামলা চালাতে পারে। ওদিকে মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আরেকজন সিনিয়র কর্মকর্তা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। সোমবার থেকে বেলারুশ সীমান্তের কাছে রাশিয়া যে সেনা মোতায়েন করছে, তা নিয়ে তার উদ্বেগ।

এরই মধ্যে রাশিয়াকে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন জো বাইডেন। তিনি বলেছেন, রাশিয়া যদি ইউক্রেনে আগ্রাসন চালায়, তাহলে তাদেরকে ভয়াবহ অর্থনৈতিক পরিণতি ভোগ করতে হবে। মঙ্গলবার আনালেনা বায়েরবক বলেছেন, রাশিয়া-ইউক্রেন সংঘাতে মৌলিক মূল্যবোধের পক্ষে দাঁড়াতে উচ্চ মাত্রায় অর্থনৈতিক মূল্য দিতে প্রস্তুত জার্মানি। অন্যদিকে নিজেদের প্রতিরক্ষা শক্তি বাড়ানোর জন্য পশ্চিমা দেশগুলোর কাছে অস্ত্র চেয়ে আবেদন করেছে কিয়েভ। সোমবার বৃটেন বলেছে, তারা এই আবেদনে সাড়া দিয়েছে। ইউক্রেনে পাঠানো শুরু করেছে ট্যাংক বিধ্বংসী অস্ত্র।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর