× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২২ মে ২০২২, রবিবার , ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২০ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

তিতাসে জামিনে এসে বাদীর বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুরের অভিযোগ

বাংলারজমিন

তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধি
২০ জানুয়ারি ২০২২, বৃহস্পতিবার

 কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় মারামারির মামলার আসামির বিরুদ্ধে জামিনে এসে বাদীর বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত মঙ্গলবার সন্ধায় উপজেলার বলরামপুর গ্রামের সৌদি প্রবাসীর স্ত্রী মামলার বাদী ফজিলাকুন্নেছার বাড়িতে। গতকাল দুপুরে সরজমিন গেলে হামলার শিকার ফজিলাতুন্নেছা জানান, মাগরিবের নামাজের পর আমি উঠানে দাঁড়িয়ে আমার স্বামীর সঙ্গে মোবাইলে কথা বলতেছিলাম, এমন সময় আমার মামলার আসামি জামিনে এসে হামিদ মেম্বার, সাখাওয়াত, করিম, মুকবুল, আবু সাঈদ ও মোজাম্মেল হকসহ ১৫/২০ জন হাতে লাঠিসোটা নিয়ে আমার বসতঘরে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। এ সময় আমার চিৎকার শুনে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে তারা চলে যায়। এ ঘটনায় আমি রাতেই থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত হামিদ মেম্বার ও সাখাওয়াতের বাড়িতে গেলে তাদেরকে পাওয়া যায়নি। তবে সাখাওয়াত হোসেন এর সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি কুমিল্লা আদালত থেকে জামিন নিয়ে বাড়িতে যাওয়ার পথে পাঙ্গাশিয়া পৌঁছলে শুনতে পাই শেখ সাবের বাড়িতে হামলা হয়েছে। এ কারণে বাড়িতে না যেয়ে রাস্তা থেকেই চলে আসি।
অপরদিকে আরেক অভিযুক্ত করিম মিয়ার বাড়িতে গেলে তার বাবা রুক মিয়া বলেন, আমার ছেলে আজ কয়েকদিন ধরে বাড়িতে নাই, কে বা কারা এমনটি করেছে আমরা জানিনা। ওই গ্রামের বাসিন্দা হেলাল মিয়া (৪০) জানান মঙ্গলবার মাগরিব নামাজের পর পূর্বের মামলার আসামি হামিদ মেম্বার, করিম, সাখাওয়াত গং জামিনে এসে বাদীর বাড়িতে হামলা করছে বলে আমি শুনতে পেয়েছি। তিতাস থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুধীন চন্দ্র দাস বলেন, বলরামপুর গ্রামে মারামারির ঘটনায় একটি মামলা রুজু হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে নাকি আবারো বাদীর বাড়িতে হামলা হয়েছে শুনেছি এবং একটি অভিযোগ পেয়েছি। এ ব্যাপারে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেবো।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর