× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২০ মে ২০২২, শুক্রবার , ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৮ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

বাংলাদেশের কোচ হতে আগ্রহী টেইট

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার
২০ জানুয়ারি ২০২২, বৃহস্পতিবার

মেয়াদ শেষে চলে গেছেন ওটিস গিবসন। বাংলাদেশের বোলিং কোচের পদ এখন খালি। ইবাদত-শরীফুলদের নতুন কোচ বাছাইয়ের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বিপিএল উপলক্ষে এরই মধ্যে বাংলাদেশে এসেছেন বেশ কয়েকজন বিদেশি কোচ। যাদের মধ্যে রয়েছেন সাবেক অজি পেসার শন টেইটও। বাংলাদেশের বোলিং কোচ হতে আগ্রহী তিনি। চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের দায়িত্বে থাকা টেইট সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি অবশ্যই আগ্রহী। তবে চিন্তা-ভাবনা করার সময় আছে তাদের (বিসিবি) হাতে।
কাজটা (বাংলাদেশের বোলিং কোচ) দারুণ হবে।’
কোচের ভূমিকায় আসার আগে চট্টগ্রাম কিংসের হয়ে বিপিএল মাতিয়েছেন শট টেইট। সাবেক অজি পেসার বলেন, ‘একই শহর, ভিন্ন নাম, ভিন্ন জার্সি। এই শহর এবং ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে পুনরায় যুক্ত হতে পারাটা দারুণ ব্যাপার বলে মনে করি।’ চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সে শরীফুল ইসলাম, মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধ, রেজাউর রহমান রাজা ও মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরীর মতো তরুণ পেসারদের সঙ্গে কাজ করবেন টেইট। শরীফুল ইতিমধ্যেই নিউজিল্যান্ড সফরে নিজের দক্ষতা দেখিয়েছেন। শরীফুলদের সঙ্গে কাজ করতে মুখিয়ে আছেন টেইট। তিনি বলেন, ‘এই মুহূর্তে বাংলাদেশের ক্রিকেটে বেশ ক’জন ভালো তরুণ ক্রিকেটার রয়েছে, যারা ভবিষ্যতে দুর্দান্ত ক্রিকেটার হয়ে উঠতে পারে। আমাদের দলেও তাদের ক’জন আছে। শরীফুল যেমন, আগ্রাসী বাঁহাতি বোলার। আমাদের দলেরও গুরুত্বপূর্ণ অংশ হবে সে। নিজেকে তুলে ধরার মতো যথেষ্ট ক্রিকেট ইতিমধ্যেই খেলে ফেলেছে সে। তাদের সঙ্গে কাজ করতে মুখিয়ে আমি। এমনিতেও বাংলাদেশ ক্রিকেটে তরুণ ক্রিকেটার ও পেসার উঠে আসছে। আগামী ৫-৬ বছর বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য রোমাঞ্চকর হতে যাচ্ছে।’
নিউজিল্যান্ডে শরীফুলের পারফরম্যান্স নজর কেড়েছে টেইটের। তিনি বলেন, ‘তার এবং বাংলাদেশের জন্য একটা ভালো ট্যুর ছিল ওটা। সে আক্রমণত্মক ছিল, স্টাম্প বরাবর বল করেছে। সে উদ্যমী এবং নিজের কাজটা উপভোগ করে। দূর থেকেই আমি যা দেখেছি, ফাস্ট বোলিংয়ের প্রতি তার মানসিকতা দারুণ’
শরীফুলদের নিয়ে খুব বেশি কাজ করার সুযোগ হয়নি টেইটের। তবে অল্প সময়েই মনোযোগ আর একাগ্রতায় গুরুকে মুগ্ধ করতে সক্ষম হয়েছেন চট্টগ্রামের তরুণ পেসাররা। টেইট বলেন, ‘গতকাল (মঙ্গলবার) তাদের সঙ্গে কাজ করেছি। তারা ভালো শ্রোতা। তারা শেখার ব্যাপারে বেশ আগ্রহী। আমার মনে হয় সে (মুগ্ধ) এই টুর্নামেন্টে ডেথ ওভারে বোলিং করা লাগতে পারে। এতে তার ওপর কিছুটা চাপ থাকবে কিন্তু এই চাপ কাটিয়ে উঠতে পারলে সে সাফল্য পাবে।’
আলোচিত বাক প্রতিবন্ধী পেসার আকসার আহমেদকে দলে নিয়েছে চট্টগ্রাম। তার ব্যাপারে টেইট বলেন, ‘ও দারুণ ছেলে। সে পুরো সেশনেই বোলিং করতে চেয়েছিল। আমি বলার পর থেমেছে। আমি চাই না পরিশ্রম করতে করতে সে বেশি ক্লান্ত হয়ে যাক। ওর ওপর দিয়ে বেশি ধকল যেন না যায় এবং পর্যাপ্ত বিশ্রাম পায় সেটি নিশ্চিত করতে হবে।’
নতুন শিষ্যদের নিয়ে নিজের কর্মপরিকল্পনার ব্যাপারে টেইট বলেন, ‘প্রথমত, অনুশীলনের সময় বোলারদের সম্পর্কে খুঁটিনাটি জানা, এটা ছিল আমার গতকালকের কাজ। আমি যতটা সম্ভব সবকিছু পরিস্কার ও সহজ করে বুঝাতে চেয়েছি। আমি ডেথ ওভারে বোলিং নিয়ে কথা বলতে পছন্দ করি। বিশেষ করে এই স্টেডিয়ামে শেষ ৪-৫ ওভার আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ হতে যাচ্ছে। স্ট্র্যাটেজি নিয়ে আমি বলবো, টুর্নামেন্টজুড়ে সবকিছু সিম্পল ও গোছানো রাখা এবং নিজেদের স্ট্র্যাটেজি থেকে সরে না যাওয়া। সহজ ও পরিষ্কার কর্মপরিকল্পনা থাকা।’
বিপিএলে এবার তারুণ নির্ভর দল চট্টগ্রাম। তবে টেইট মনে করছেন, আত্মবিশ্বাসী ক্রিকেট খেলতে পারলে সমীহ জাগানিয়া দলে পরিণত হবে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। দলের ভক্ত সমর্থকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আমাদের ইয়াংস্টারদের নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে। আমাদের দলটাকে অনভিজ্ঞ ও আন্ডারডগ মনে হতে পারে। কিন্তু আমাদের খেলা তাদের মতো হবে না। কোচিং স্টাফদের থেকে বার্তা হলো- আত্মবিশ্বাসী হও। যদি বিজয়ীর মতো চরিত্র দেখাতে পারি এবং আত্মবিশ্বাস নিয়ে এগোতে পারি তাহলে আমরা লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবো।’
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর