× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২২ মে ২০২২, রবিবার , ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২০ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

অকালে ঝরে গেল হাবীবের প্রাণ

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
২০ জানুয়ারি ২০২২, বৃহস্পতিবার

রাজধানীর হাতিরঝিলে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন দৈনিক সময়ের আলো’র সিনিয়র রিপোর্টার এবং ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক হাবীব রহমান (৩৪)। মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে হাতিরঝিলের বেগুনবাড়ি প্রান্তের
সিদ্দিক মাস্টারের ঢালে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ বলেছে, হাতিরঝিল সড়ক দিয়ে বাসায় যাওয়ার সময় মোটরসাইকেলটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফুটপাথে আছড়ে পড়ে মৃত্যু হয়েছে হাবীব রহমানের। ঘটনাস্থল থেকে তার ব্যবহার করা মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ বিটের মেধাবী এই সাংবাদিকের মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে পুরো সাংবাদিক সমাজে। শোকে স্তব্ধ তার পরিবার ও সহকর্মীরা। ডিআরইউ’র চত্বরে তার সহকর্মীরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে শোকার্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ ছাড়াও ডিআরইউ, বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন (ক্র্যাব), ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন, বিএফইউজেসহ বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন পৃথক বিবৃতিতে শোক জানিয়েছেন।

হাতিরঝিল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) কায়েস উদ্দিন বলেন, ‘রাত আড়াইটার কিছু সময় পরে এক পথচারী ৯৯৯-এ ফোন করে দুর্ঘটনার খবর দেন।
পরে গুরুতর আহত অবস্থায় হাবীব রহমানকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাত সাড়ে ৩টার দিকে মৃত ঘোষণা করেন। তার মৃত্যুর খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে যান তার সহকর্মীরা। পুলিশ জানায়, ঘটনাস্থলের আশপাশে তেমন কোনো সিসি টিভির ফুটেজ পাওয়া যায়নি। সেই এলাকার ক্যামেরা নষ্ট ছিল। ফলে ওই সময় কী ঘটেছিল তা জানা যায়নি।

পুলিশের পক্ষ থেকে তৈরি করা সুরতহাল প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, তার মুখমণ্ডল বন্ধ ছিল। আঘাতে তার মুখমণ্ডল থেঁতলানো, চোয়াল ছিল বিচ্ছিন্ন, নাক ও মুখমণ্ডলে রক্ত ছড়িয়ে ছিল। তবে কান ছিল স্বাভাবিক। নিহতের স্বজনরা জানিয়েছেন, হাবিব রহমানের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল ইউনিয়নের মানরায়।

তার বাবার নাম মোহাম্মদ পিয়ার মিয়া। বর্তমানে স্ত্রী হাসি আক্তার রিমি ও একমাত্র সন্তান সৌরভ হোসেন রাজসহ হাতিরঝিল এলাকার ৫/এ, জোহরা মঞ্জিলের একটি ফ্ল্যাটে থাকতেন। ৩ বোন ও ২ ভাইয়ের মধ্যে নিহত হাবীব ছিলেন সবার বড়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর হাবীব রহমান সময়ের আলোতে যোগদানের আগে আজকালের খবর এবং দৈনিক মানবকণ্ঠের প্রতিবেদক হিসেবে কাজ করেছেন। পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী সদস্য ছিলেন তিনি।

সূত্র জানায়, ঢামেক মর্গে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হওয়ার পর গতকাল দুপুর আড়াইটার দিকে ডিআরইউ’র সামনে হাবীব রহমানের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম মিঠু ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম হাসিবসহ ডিআরইউ’র অন্য নেতারা তার কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ ছাড়াও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন, বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন, রংপুর বিভাগ সাংবাদিক সমিতি, চট্টগ্রাম বিভাগ সাংবাদিক ফোরাম, কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম ও দিনাজপুর বিভাগ সাংবাদিক সমিতি শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করে। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব কে এম শাখাওয়াত মুন ও হাসান জাহিদ তুষার, প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব মু. আশরাফ সিদ্দিকী বিটু ও এবিএম সরওয়ার-ই-আলম সরকার শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে তার মরদেহ নেয়া হয় হাবীবের প্রিয় ক্যাম্পাস ঢাবি’র কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে। এরপর তার তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয় কর্মস্থল দৈনিক সময়ের আলো’র কার্যালয়ের নিচে। সেখানে জানাজা শেষে তার মরদেহ গ্রামের বাড়ি কুমিল্লায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চতুর্থ জানাজা শেষে রাতেই দাফন করার কথা রয়েছে।

ডিআরইউ’র শোক প্রকাশ:
ডিআরইউ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কার্যনির্বাহী কমিটির পক্ষ থেকে হাবীবুর রহমানের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেন। এ ছাড়াও পৃথক বার্তায় গভীর শোক প্রকাশ করে শোকার্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ও নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর