× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২৩ মে ২০২২, সোমবার , ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২১ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

আশুলিয়ায় অপহৃত যুবক উদ্ধার তিন অপহরণকারী আটক

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, সাভার থেকে
২১ জানুয়ারি ২০২২, শুক্রবার

আশুলিয়ায় মাকসুদুল হক (২১) এক যুবককে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবির ঘটনায় তিন অপহরণকারীকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় অপহৃত ওই যুবককেও উদ্ধার করা হয়েছে। তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আরও এক অপহরণকারী পালিয়ে গেছে। গতকাল দুপুরে আশুলিয়া থানার (এসআই) উপ-পরিদর্শক মো. হারুন-অর-রশিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেন। বুধবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে আশুলিয়ার কুরগাঁও নতুনপাড়া এলাকার একটি বাসা থেকে অপহৃত মাকসুদুলকে উদ্ধারসহ তিন অপহরণকারীকে আটক করা হয়। উদ্ধার হওয়া মাকসুদুল হক নরসিংদীর শিবপুর থানার দক্ষিণ সাদার চর এলাকার আব্দুর রবের ছেলে। সে আশুলিয়ার গৌরীপুর এলাকার সিবিটি সিঙ্গাপুর ট্রেনিং সেন্টারের প্রশিক্ষণার্থী। অন্যদিকে আটককৃতরা হলো- কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ থানার দিগারহাওলা এলাকার রুবেল মিয়ার ছেলে অন্তর (২০), দিনাজপুরের পাবর্তীনগর থানার মশথপুর এলাকার মৃত কাজল হোসেনের ছেলে ইয়াছিন (১৯) এবং অন্যজন ঝিনাইদাহের কালিগঞ্জের মইশাহাটা এলাকার তোতা মিয়ার ছেলে শাহিন (১৯)।
তারা সকলেই আশুলিয়ার কুরগাঁও নতুনপাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতো। এ ছাড়া পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ইকরাম (২৫) নামের আরও এক অপহরণকারী পালিয়ে যায়। অপহৃত যুবকের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, বুধবার রাতে মাকসুদুল তার বন্ধুকে গ্রামের বাড়ি খুলনায় যাওয়ার জন্য গাড়িতে উঠিয়ে দিতে নবীনগর বাসস্ট্যান্ডে আসেন। পরে তাকে একটি গাড়িতে উঠিয়ে দিয়ে ট্রেনিং সেন্টারের দিকে ফিরে যেতে থাকেন। এসময় ফুটওভার ব্রিজ পার হয়ে  সেনা শপিং কমপ্লেক্সের সামনে নামলে একটি রিকশা পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে তার উপর উঠিয়ে দেয়। এতে সে আহত হলে তাকে চিকিৎসার কথা বলে অপহরণ করে কুরগাঁও এলাকার একটি স্কুলে নিয়ে যায় অপহরণকারীরা। পরে তার নিকট থাকা নগদ ১৫শ’ টাকা ও মোবাইলফোন ছিনিয়ে নেয়। পরে মোবাইলের বিকাশ বা রকেটের পিন নাম্বার জানতে চায়। পিন নাম্বার না বলায় তাকে বেধড়ক মারপিট ও প্রাণনাশের হুমকি দেয়। এরপরে তার পরিবারকে ফোন করে মুক্তিপণ হিসেবে ২০ হাজার টাকা দাবি করেন তারা। পরে তার বোন বিকাশের মাধ্যমে ৪ হাজার ৫শ’ টাকা পাঠায়। এ খবর শুনে তার বন্ধু জরুরি সেবার নাম্বার ৯৯৯-এ ফোন করে।  ফোন পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অপহৃত যুবককে উদ্ধার করে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত তিন অপহরণকারীকে আটক করে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে একজন পালিয়ে যায়। আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হারুন-অর-রশিদ জানান, জরুরি সেবা ৯৯৯ থেকে কল পেয়ে বিকাশ লেনদেনের সূত্রধরে আশুলিয়ার কুরগাঁও এলাকা থেকে অপহৃত মাকসুদুলকে উদ্ধার করা হয়। এসময় ঘটনার সঙ্গে জড়িত তিনজনকে আটক করা হয়েছে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে একজন পালিয়ে যায়। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর