× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২১ মে ২০২২, শনিবার , ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

র‌্যাব তৈরি করেছে আমেরিকান ও বৃটিশরা

শেষের পাতা

দিরাই (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি
২২ জানুয়ারি ২০২২, শনিবার

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, আমাদের র‌্যাব কাজেকর্মে অত্যন্ত দক্ষ। তারা খুব ইফেক্টিভ, ভেরী ইফেশিয়ান্ট এবং তারা করাপ্ট নয়। এজন্যই তারা জনগণের আস্থা অর্জন করেছে। আমাদের দেশে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড র‍্যাবের কারণেই কমে গেছে। হলি আর্টিজানের পর গত কয়েক বছরে আর কোনো সন্ত্রাসী তৎপরতা হয়নি। এটা সম্ভব হয়েছে র‌্যাবের কারণে। ইউএস স্ট্যাট ডিপার্টমেন্টও সেটা স্বীকার করেছে।
মন্ত্রী বলেন, দুটো ক্ষেত্রে র‍্যাব অন্যায় করেছিল।
সেগুলোর জুডিশিয়াল প্রসেসে বিচার হয়েছে। ওদের শাস্তি হয়েছে।
তিনি বলেন, এই র‌্যাব তৈরি করেছে আমেরিকান ও বৃটিশরা। দ্যা হ্যাব বিন ট্রেইন বাই ইউএসএ। ইউএসএ তাদের শিখিয়েছে তাদের রুলস অ্যান্ড এনগেজমেন্ট। কীভাবে মানুষের সঙ্গে ব্যবহার করতে হবে, হাউ টু ইন্টারগেশন। এগুলো সবকিছু শিখিয়েছে আমেরিকা। তাদের রুলসে যদি কোনো কিছু দুর্বলতা থাকে, কোনো উইকনেস থাকে, এই রুলস অব এনগেজমেন্টে যদি কোনো মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়, অবশ্যই সেখানে নতুন করে ট্রেনিং হবে। কিন্তু  কোনো ব্যক্তি বিশেষের উপর হঠাৎ করে এই যে স্যাংশনগুলো দেয়া হয়েছে সেটা কিন্তু খুব জাস্টিফাইজ না। ওরা আমাদের বলেছে, গত ১০ বছরে বাংলাদেশে ৬শ’ লোক মিসিং হয়েছে। আমেরিকাতে প্রতিবছর একলক্ষ মিসিং হয়। ওর দায়দায়িত্ব কে নেবে? আমাদের দেশে মিসিং যারা হয় পরবর্তীতে দেখা যায় আবার সে বের হয়ে আসে। একটা কেইস বলি এই এলাকারই। হারিস চৌধুরী। আজকে আমরা কয়েকবছর ধরে জানি তিনি মিসিং। এখন দেখুন উনি দেশেই ছিলেন। মৌলভী সেজে গেছিলেন। তাবলীগ- টাবলীগ করতেন। সেদিন গত বছরের সেপ্টেম্বরে উনার ওফাত হয়েছে। এ ধরনের অনেক কাহিনী আমরা শুনি। হঠাৎ হঠাৎ করে বের হয়। আরেকজন নামকরা লোক মিসিং হলো। আরেকজন মিলন সাহেব নাকি কি যেন নাম। উনি মিসিং হয়ে পরে আসামে পাওয়া গেল। দিস ইজ ভেরী স্যাড। এসব তথ্য যাচাই-বাচাই না করে বড় বড় বিদেশি লোক যারা না জেনে অভিযোগ করেছেন আমরা তাদেরকে বলি বাংলাদেশে আসেন দেখেন কথা বলেন সত্য ঘটনা উদ্‌ঘাটন করেন পরে ব্যবস্থা নেন।
র‍্যাবের উপর আমেরিকার এই নিষেধাজ্ঞা দুঃখজনক উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমেরিকা একতরফা তথ্য পেয়েছে আমরা বিষয়টি তাদেরকে জানাবো।
আমেরিকায় লবিস্ট নিয়োগের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আমেরিকায় লবিস্ট নিয়োগ একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। আমাদের দেশে কেনো কাজ করাতে গেলে তদবির করাতে হয়। এই যে এমপি সাহেব আছেন, জনপ্রতিনিধিরা আছেন। উনারা সবসময়ই তদবির করেন। আপনার এইখানে যদি বাঁধ নির্মাণ করতে হয়। তখন তদবির করতে হয়। আমেরিকায় তদবিরের নাম তারা বলে লবিস্ট। সরকারের সঙ্গে যারা দেন-দরবার করে, তদবির করে তাদের বলে লবিস্ট। লবিস্ট একাধিক ধরনের। কেউ যদি লবিস্ট নিয়োগ করে থাকে সেটাতো আইনসিদ্ধ। তবে প্রশ্ন উঠেছে আপনি বিদেশে লবিস্ট নিয়োগ করেছেন। আপনি টাকাটা কোত্থেকে দিবেন। কীভাবে দেবেন। তার যাদি একটা হিসাব ঠিকমতো দেন। তাইলে সব ঠিক।
জেডআই ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা যুক্তরাজ্য প্রবাসী জিল্লুর হোসাইনের আমন্ত্রণে গতকাল বিকালে দিরাই উপজেলার জগদল ইউনিয়নের ছয়হারা নগদীপুর ইসলামিয়া আরবিয়া মাদ্রাসা, সৈয়দ মনোহর আলী আটগ্রাম মহাবিদ্যালয়, শিরিলব চৌধুরী চাইল্ড কিন্ডারগার্টেন পরিদর্শনে এসে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন সরকারের গুরুত্বপূর্ণ এ মন্ত্রী।
পরিদর্শনকালে ইংল্যান্ডের ব্যবসা, পর্যটন ও বন্দরমন্ত্রী বিজয় দারিয়ানানি, বৃটিশ এমপি পল ব্রিস্ট্রো, সামান্তা কোহেন, টম হান্ট, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট শামীমা শাহরিয়ার, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এনামুল কবীর ইমন, দিরাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহমুদুর রহমান মামুন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সুফিয়ান, ওসি আজিজুর রহমান, জগদল ইউপি চেয়ারম্যান শিবলী আহমেদ বেগ, নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান হুমায়ুন রশীদ লাভলু উপস্থিত ছিলেন।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর