× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২৯ মে ২০২২, রবিবার , ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

গাজীপুরে সবজির দাম চড়া

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর থেকে
২৪ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার

শিল্প অধ্যুষিত জনবহুল জেলা গাজীপুরে শীতকালে প্রচুর সবজি সরবরাহ থাকলেও দাম কমেনি। চড়া দামের সবজি কিনতে গিয়ে হিমশিমে পড়ছেন মধ্যবিত্ত ও কম আয়ের লোকজন। দাম বাড়ার কারণ হিসেবে খুচরা বিক্রেতারা দুষছেন পাইকারি বিক্রেতাদের। শীতের এই ভরা মৌসুমে গাজীপুরের সবজি বাজারে ২০ টাকা কেজি দরে পাওয়া যাচ্ছে একমাত্র আলু। এ ছাড়া শীতকালীন সবজি শিম থেকে শুরু করে সব কিছুর দাম ৪০ টাকার উপরে। গতবছর প্রতিকেজি শিম বিক্রি হয়েছে ২৫ থেকে ৩০ টাকায় এখন সেটার দাম সর্বনিম্ন ৫০ টাকা। যেই ফুলকপি গত বছর ছিল ২০ থেকে ২৫ টাকা এখন সেই ফুলকপির দাম ৪০ টাকার উপরে। এভাবেই বাঁধাকপি, শসা, টমেটো থেকে শুরু করে কাঁচামরিচ পর্যন্ত সব কিছুরই দাম চড়া রয়েছে।
সবজির দাম চড়া হওয়ায় কম আয়ের মানুষের সংসার চালানো খুবই কষ্টকর হয়ে পড়ছে। তারা বলছেন, সব সবজির দাম বেশি হওয়ায় প্রয়োজন অনুযায়ী কেন যাচ্ছে না। এই মৌসুমে সবজির দাম আরও কম থাকা উচিত ছিল। বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনিক নিয়মিত মনিটরিং থাকলে হয়তো দাম আরও কম থাকতো।
তবে দাম বেশি হওয়ায় খুশিতে নেই খুচরা বিক্রেতারাও। তারা বলছেন, পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বেশি দামের সবজি কিনতে হচ্ছে। গত বছর এই সময়ে তারা প্রতিকেজি শিম বিক্রি করেছেন ৩০ থেকে ৩৫ টাকা। এখন সেই শিম সর্বনিম্ন ৫০ টাকা দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। এভাবে প্রায় সব সবজি তাদের কিনতে হচ্ছে বেশি দামে। তাই নিরুপায় হয়ে বিক্রিও করতে হচ্ছে বেশি দামে। তারা আরও বলছেন, দাম বেশি হওয়ায় তুলনামূলক বিক্রি কমে গেছে। ক্রেতাগণ আসেন ঠিকই। দরদাম করে অনেকে কম পরিমাণে কিনছেন। আবার কেউ চলে যাচ্ছেন। দাম কম থাকলে বেচাবিক্রি আরও বেশি হতো।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর