× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২২ মে ২০২২, রবিবার , ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২০ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

মোরেলগঞ্জে চাঁদা তুলে পুল মেরামত

বাংলারজমিন

মো. শাহজাহান আলী, মোরেলগঞ্জ (বাগেরহাট) থেকে
২৭ জানুয়ারি ২০২২, বৃহস্পতিবার

 বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে বছরের পর বছর ভগ্নদশায় পড়ে রয়েছে কয়েকটি পুল। স্থানীয়রা চাঁদা তুলে মাঝে মধ্যে মেরামত করে কোনোমতে চলাচল করছেন এসব পুল দিয়ে। নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের হরতকীতলা, গুলিশাখালী ও আমরবুনিয়া গ্রামের মানুষের যোগাযোগের একমাত্র ভরসা দুটি পুলের ভগ্নদশার কারণে দুর্ভোগে রয়েছেন ৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীসহ ৪টি গ্রামের শত শত মানুষ। জানা গেছে, নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের সুন্দরবন সংলগ্ন ঘোপের খালের দুই পাড়ে হরতকীতলা গুলিশাখালী ও আমরবুনিয়া গ্রাম। ৩ গ্রামের বহু মানুষ প্রতিদিন এ পুল দু’টি পার হয়ে উত্তরগুলিশাখালী সরকারি পাথমিক বিদ্যালয়, আরএম মাধ্যমিক বিদ্যালয়, জিএম হরতকীতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সেরজনস্মৃতি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, উত্তরগুলিশাখালী হাফেজিয়া মাদ্রাসা, কুদঘাটা বাজার, গুলিশাখালী বাজারসহ ৩টি মসজিদের মুসল্লিরা প্রতিনিয়ত এ পুলটি ব্যবহার করছেন। এ ছাড়া ৫ শতাধিক পরিবার সুপেয় পানি সংগ্রহের জন্যও এ পুল দুটি ব্যবহার করে থাকেন। পুল দু’টির বিষয়ে স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য ও প্রধান শিক্ষক মো. আলতাফ হোসেন, আব্দুল মান্নান হাওলাদার, শিক্ষার্থী বনি আমীন, খলিদ মাসুদ বলেন, ৫-৬ বছর ধরে হরতকীতলা ও গুলিশাখালী গ্রামের জরাজীর্ণ পুল দু’টির সরকারিভাবে কোনো সংস্কার করা হয়নি। স্থানীয়রা চাঁদা তুলে মেরামত করান।
ভগ্নদশার কারণে পুল দু’টি থেকে এখন আর দ্রুতযান পারাপার হতে পারছে না। তারা দ্রুত এখানে কালভার্ট নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন। এ বিষয়ে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বাচ্চু বলেন, প্রায় ৩ বছর পূর্বে হরতকীতলার একটি পুল মেরামতের জন্য পরিষদ থেকে বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। এলজিএসপির বরাদ্দের মাধ্যমে ভবিষ্যতে কালভার্ট নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর