× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ১৭ মে ২০২২, মঙ্গলবার , ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৫ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

অতিরিক্ত ট্রিপ ধরতে প্রতিযোগিতায় নেমেছিলেন দুই চালক

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
২৭ জানুয়ারি ২০২২, বৃহস্পতিবার
নিহত রাকিব

রাজধানীর মগবাজার মোড়ে বাসের চাপায় কিশোর নিহতের ঘটনায় দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তারা হলেন- মো. মনির হোসেন (২৭) এবং মো. ইমরান (৩৪)।  গ্রেপ্তারকৃতরা র‌্যাবকে জানিয়েছে, তারা অতিরিক্ত ট্রিপ ধরতে উচ্চগতিতে গাড়ি চালাচ্ছিলেন। আর এতে দুই বাসের চাপায় মাস্ক বিক্রেতা কিশোর রাকিবুলের মৃত্যু  হয়। গতকাল দুপুরে রাজধানীর কাওরান বাজারে র‌্যাব’র মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব’র লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।
তিনি বলেন, গত ২০শে জানুয়ারি ঢাকা মহানগরীর মগবাজার মোড়ে বিকাল ৫টার দিকে আজমেরী গ্লোরী পরিবহনের দু’টি বাস প্রতিযোগিতামূলকভাবে বেপরোয়া গতিতে চালানোর কারণে মো. রাকিবুল হাসান (১৪) নামে এক কিশোর বাস দু’টির মাঝে চাপা পড়ে। ঘটনাস্থল হতে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। দুর্ঘটনার পর দুই ঘাতক চালক বাস দু’টিকে রেখে পালিয়ে যায়। ভুক্তভোগী ঘটনাস্থলে মাস্ক বিক্রি করছিল। এ ঘটনায় দেশব্যাপী ব্যাপক চাঞ্চ্যলের সৃষ্টি হয়।
উক্ত দুর্ঘটনায় নিহতের পরিবারের সদস্যরা সড়ক ও পরিবহন আইনে রমনা মডেল থানায় মামলা করেন। র‌্যাব জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে।
খন্দকার আল মঈন বলেন, এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৩ এর আভিযানিক দল গত ২৫শে জানুয়ারি রাতে ঢাকা মহানগরীর পল্টন এলাকা এবং মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর এলাকা  থেকে আজমেরী গ্লোরী পরিবহনের দুইটি ঘাতক বাসের চালক মনির হোসেন (২৭) এবং মো. ইমরানকে (৩৪) গ্রেপ্তার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা এ ঘটনায় তাদের সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করেন।
তিনি আরও বলেন, গ্রেপ্তারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে মনির হোসেন জানায়, তিনি পাঁচ বছর ধরে মধ্যপ্রাচ্যে কর্মরত ছিলেন। ৩ মাস আগে বাংলাদেশে তার নিজ গ্রামের বাড়ি ভোলাতে আসে এবং প্রায় দেড় মাস আগে ঢাকাতে কর্মসংস্থানের জন্য আসেন। প্রায় ১ মাস আগে থেকে আজমেরী গ্লোরীর বাসের চালকের সঙ্গে ঐ বাসে  দৈনিক ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা মজুরিতে সহকারী হিসেবে কাজ শুরু করেন। সে মাঝে-মধ্যে বাসটি চালাতেন। গত ২০শে জানুয়ারি ৫টার সময় আজমেরী গ্লোরী পরিবহন (ঢাকা মেট্রো-ব-১৫-৫৭৮৭) সদরঘাট থেকে গাজীপুর চন্দ্রার উদ্দেশে বাসের মূল চালক চালিয়ে নিয়ে আসে। পথিমধ্যে চালক গুলিস্তানে এসে গাড়িটি হেলপার মনির হোসেন এর দায়িত্বে দিয়ে যায় এবং মনির গাড়িটি চালিয়ে মগবাজার মোড়ে নিয়ে আসে।
র‌্যাব’র এই কর্মকর্তা বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানায়, মগবাজার মোড়ের সিগন্যাল ছেড়ে দিলে দ্রুত গাড়ি দুইটি এগিয়ে যাচ্ছিল। তাদের উদ্দেশ্য ছিল পরবর্তী স্টপেজে যে আগে পৌঁছাতে পারবে সে বাসের জন্য অপেক্ষারত বেশিসংখ্যক যাত্রীকে তার বাসে নিতে পারবেন। এ অবস্থায় অসুস্থ প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে এক গাড়ি অপর গাড়িটিকে ওভারটেক করার সময় দুই গাড়ির মাঝখানে চাপা পড়ে উক্ত কিশোর। এ ঘটনার পরপরই বাসের দুই চালক মনির হোসেন এবং ইমরান হোসেন বাস দু’টি রেখে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান। জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃত ইমরান হোসেন জানান, তিনি ১০ থেকে ১২ বছর ধরে আজমেরী গ্লোরী নামক কোম্পানির বাস চালাতেন। ঘাতক বাসটি (ঢাকা মেট্রো-ব-১৫-৬০৫৬) তিনি আনুমানিক ২ বছর ধরে চালিয়ে আসছেন। তিনিও একসময় হেলপার ছিলেন। বিগত ৩ বছর আগে তিনি ড্রাইভিং লাইসেন্স করেছেন বলে জানান। বাসটির মালিকের কাছ থেকে দৈনিক ৩৫০০ টাকায় বাসটি ভাড়ায় চালানো শুরু করে। গত ২০শে জানুয়ারি ৫টার সময় যথারীতি বাসটি নিয়ে সদরঘাট থেকে গাজীপুর চন্দ্রার উদ্দেশে রওনা হয়। পরবর্তীতে এই দুর্ঘটনা ঘটে। গ্রেপ্তারকৃত ইমরানের বিরুদ্ধে ২০২১ সালে ১টি কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা রয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান তিনি।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর