× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিমত-মতান্তরবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে কলকাতা কথকতাসেরা চিঠিইতিহাস থেকেঅর্থনীতি
ঢাকা, ২১ মে ২০২২, শনিবার , ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯ শওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

মির্জাপুরে আওয়ামী লীগের আসল কমিটি কোনটি?

বাংলারজমিন

মো. জোবায়ের হোসেন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) থেকে
২৮ জানুয়ারি ২০২২, শুক্রবার

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ইজ্জত আলী জনি নামের এক নেতাকে বহিষ্কার করেছে মির্জাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ। কিন্তু বহিষ্কার আদেশের ওই পত্রে বহিষ্কৃত ইজ্জত আলী জনিকে একটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সদস্য হিসেবে উল্লেখ করা হলেও তিনি নিজেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-দপ্তর সম্পাদক হিসেবে দাবি করেন। এদিকে ২০১৭ সালে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত ভিন্ন দুটি তারিখে অনুমোদন দেয়া কমিটি অনুয়ায়ী উভয় পক্ষের দাবিই সঠিক। ফলে প্রশ্ন উঠেছে আসলে মির্জাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের কোন কমিটি বৈধ বা কোন কমিটি চূড়ান্ত।
প্রসঙ্গত, গত ২০১৭ সালের ১৮ই সেপ্টেম্বর টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান খান ফারুক ও সাধারণ সম্পাদক জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের এমপি স্বাক্ষরিত ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির কোথাও ইজ্জত আলী জনির নাম না থাকলেও একই বছরের ১৯শে সেপ্টেম্বর টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কর্তৃক স্বাক্ষরিত আরেকটি ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির তালিকায় সহ-দপ্তর সম্পাদক হিসেবে রয়েছেন ইজ্জত আলী জনি। এদিকে, বহিষ্কৃত এই নেতা নিজেকে এতদিন নিজেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-দপ্তর সম্পাদক হিসেবে পরিচয় দিয়ে দলীয় কর্মকাণ্ডে সক্রিয় ছিলেন। বিভিন্ন রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে মির্জাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে দলীয় কর্মকাণ্ডের প্রমাণ রয়েছে। সহ-দপ্তর সম্পাদক পদ পরিচয়ে রয়েছে ব্যানার ফেস্টুন।
কিন্তু এতদিন এ নিয়ে দৃশ্যত কার্যকরী কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি মির্জাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ।
এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগ কর্তৃক বহিষ্কৃত ইজ্জত আলী জনি বলেন, আমি রাজনৈতিক গ্রুপিংয়ের শিকার। সামনে আমার ইউনিয়নে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। সেই নির্বাচনে আমি যেন দলের মনোনয়ন না পাই সেজন্য একটি পক্ষ আমার পেছনে লেগেছে। এই বহিষ্কারাদেশ অবৈধ। মির্জাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক জহিরুল ইসলাম জহির ইজ্জত আলী জনির বহিষ্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মির্জাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকটি কমিটি হয়েছিল। কিন্তু যে কমিটিতে ইজ্জত আলী জনির নাম নেই সেই কমিটিই চূড়ান্ত। টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের এমপি বলেন, স্থানীয় দায়িত্বপ্রাপ্তরা সুপারিশ করতে পারেন কিন্তু কেন্দ্র ছাড়া বহিষ্কার করার এখতিয়ার কার নেই। মির্জাপুরে কোন কমিটি বৈধ সে ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি সচিবালয়ে রয়েছেন জানিয়ে পরে কথা বলবেন বলে জানান।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর