× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার

বৃটেনে ব্রাজিল ভ্যারিয়েন্ট কোভিড সংক্রমণের ১১টি ঘটনা ধরা পড়েছে

অনলাইন

সাঈদ চৌধুরী
(১ মাস আগে) জানুয়ারি ১৬, ২০২১, শনিবার, ৯:৩২ পূর্বাহ্ন

বৃটেনে ব্রাজিলের নতুন কোভিড স্ট্রেইন শনাক্ত হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সোমবার ভোর ৪টা থেকে সমস্ত ভ্রমণ করিডোর স্থগিত করেছেন। প্রত্যেকের প্রবেশের জন্য নেতিবাচক কোভিড পরীক্ষা আবশ্যক করা হয়েছে। তিনি বলেছেন, নতুন স্ট্রেইন শনাক্ত করা হচ্ছে এবং বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত করেছেন ইতিমধ্যে ১১টি ব্রাজিল ভ্যারিয়েন্ট সংক্রমনের ঘটনা ধরা পড়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন গতকাল সন্ধ্যা ৫টায় ১০ ডাউনিং স্ট্রিটে প্রেস ব্রিফিংয়ে আরো বলেছেন, দেশের সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ বাড়িয়ে দিতে হচ্ছে। দক্ষিণ আমেরিকা, মধ্য আমেরিকা  এবং দক্ষিণ আফ্রিকার যাত্রী ইতোমধ্যে আসার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ব্রাজিলের সাথে ভ্রমণ সংযোগের কারণে পানামা এবং পর্তুগালকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

অন্য যারা বৃটেনে আসবেন, তাদের অবশ্যই ৭২ ঘন্টা আগের নেতিবাচক পরীক্ষার প্রমাণ থাকতে হবে। আগত সকলকে ১০ দিনের আইসোলেশন তথা স্ব-বিচ্ছিন্ন হতে হবে।  এই সময়ের মধ্যে নেতিবাচক ফলাফল হলে ৫ দিনে তিনি মুক্ত হতে পারবেন।

প্রধানমন্ত্রী আরও ঘোষণা করেছেন, বৃটেনে ইতিমধ্যে ৩.৩ মিলিয়ন লোককে টিকা দেয়া হয়েছে। এটি জনসংখ্যার প্রায় ২০ জনের একজন। দেশ জুড়ে মোট ৩২,৩৪,৯৪৬ জন লোক এখন কোভিড ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ পেয়েছেন।
এর মধ্যে ৮০ বছরের অধিক বয়সী রয়েছেন ১.৩ মিলিয়ন। এই স্তরের মোট জনগোষ্ঠীর প্রায় ৪৫ শতাংশের টিকাদান সম্পন্ন হয়েছে।

গতিবেগ হওয়ায় সরকার টিকা দেয়ার লক্ষ্য দ্বিগুণ করার প্রয়াস চালিয়েছে। বরিস জনসন ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ১৪ মিলিয়ন লোককে টিকাদানের প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন।

প্রধানমন্ত্রী সবাইকে বাড়ি থেকে বেরোনোর আগে 'দু'বার চিন্তা' করার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, এখনই রিলাক্স হওয়া উচিত নয়। এটি সামান্যতম শিথিলতার সময় নয়। সুতরাং দয়া করে বাড়িতে থাকুন, এনএইচএস রক্ষা করুন এবং জীবন বাঁচান।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিসংখ্যান মোতাবেক করোনভাইরাস মৃত্যুর সংখ্যা এখনো বেড়ে চলেছে। তবে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ও প্রাদুর্ভাব ধীরে ধীরে কমতে শুরু করছে। এক সপ্তাহে ২৩.৭ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। গতকাল কোভিডের মৃতের সংখ্যা ছিল ১২৮০ জন। যদিও এটি গত সপ্তাহে একই সময়ের কিছুটা কম। বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন, তিন সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতিদিনের মৃত্যুর হার কমতে থাকবে।

টরি এমপিরা লন্ডনে 'খুব কম' ভ্যাকসিন রোলআউট নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন, যা সর্বোচ্চ মাত্রা থাকা সত্ত্বেও বেশিরভাগ ইংল্যান্ডের চেয়ে পিছিয়ে রয়েছে। নভেম্বরের শেষে ইংল্যান্ডে মোট ৪.৪৬ মিলিয়ন মানুষ হাসপাতালের চিকিত্সা শুরু করার অপেক্ষায় রয়েছেন।

একটি রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, কোভিড দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে বৃটেনের জনসংখ্যার বৃহত্তম পতন ঘটিয়েছে।

এদিকে নভেম্বরে জিডিপি ২.৬ শতাংশ কমে যাওয়ার পরে বৃটেন আরেকটি মন্দার মুখোমুখি হয়েছে।  কারণ দ্বিতীয় করোনা ভাইরাস লকডাউনে অর্থনীতি ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

সীমান্ত পেরিয়ে পণ্য সরবরাহের আশঙ্কা প্রকাশ পেয়েছে। ফ্রান্স দাবি করেছে, লরি চালকরা পিসিআর পরীক্ষা নিতে চান যা দ্রুত পার্শ্বীয় প্রবাহ সংস্করণের পরিবর্তে ফল দিতে তিন দিন সময় নিতে পারে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর